শিরোনাম

  ২৪ ডিসেম্বর থেকে পার্বত্য এলাকাসহ মাঠপর্যায়ে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন করা হবে   গ্রাম আদালতের একটি সফল গল্প   টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগের পর চার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব বণ্টন   আগামী ২৪ ডিসেম্বর জেএসসি ও প্রাথমিক সমাপনীর ফল প্রকাশ   নির্বাচনকালীন ইউএনও-ডিসির স্বাক্ষরে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা : শিক্ষা মন্ত্রণালয়   খালেদার মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের বিভক্ত আদেশ   'তিন পার্বত্য জেলায় ৩৮ টি ভোটকেন্দ্রে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে'   সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ন নির্বাচন নিশ্চিত করার আহ্বান ইউরোপীয় দেশগুলোর   তরুণ ও নারী ভোটাররাই আওয়ামী লীগের বিজয়ের প্রধান হাতিয়ারঃ কাদের   গত ৫ বছরে জেএসএস এমপি উন্নয়ন করতে পারেনি, যা করেছে আওয়ামীলীগ করেছে : দিপংকর তালুকদার   এখন থেকে সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার আগে মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক   'বান্দরবানে বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই'   'নির্বাচনী প্রচারণায় রঙিন পোস্টার বা ব্যানার ব্যবহার করা যাবে না'   ৫৮টি নিউজ পোর্টাল খুলে দিয়েছে বিটিআরসি   বুধবার থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী   বিএনপি ক্ষমতায় এলে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করার চেষ্ঠা করবো: মনি স্বপন দেওয়ান   তিন পাহাড়ে নৌকা নিয়ে মাঠে দৌড়াবেন যারা   আগামীকাল খালেদা জিয়ার অগ্নিপরীক্ষা   হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, সফল হিরো আলমের চ্যালেঞ্জ   খাগড়াছড়িতে বনের রাজা পেয়েছেন ইউপিডিএফের প্রার্থী নতুন কুমার চাকমা
প্রচ্ছদ / সোশ্যাল মিডিয়া / আপনারা কি মেহেরবানী করে বলবেন পাহাড়ের মানুষের উদ্দেশ্যে আপনারা কি করছেন?

আপনারা কি মেহেরবানী করে বলবেন পাহাড়ের মানুষের উদ্দেশ্যে আপনারা কি করছেন?

প্রকাশিত: ২০১৮-০৭-২৯ ২২:৩২:৪৪

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক

(১)
খাগড়াছড়ির শিশুটির নির্যাতন ও হত্যার জন্যে অভিযোগ শোনা যাচ্ছে চারজন ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এই অভিযোগ কে করছে কিসের ভিত্তিতে করছে জানিনা। কিন্তু পুলিশ কি করছে সেটা জানতে চাই, দেখতে চাই। দেখতে চাই যে সম্ভাব্য সকল অভিযুক্ত ব্যক্তিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে, অভিযোগ তদন্ত করছে এবং দ্রুত বিচারের ব্যাবস্থা করছে। এইটা সম্ভবত দেশের সকল মানুষই চায়। আমরা পিটিয়ে মারার পক্ষে না, আমরা দেখতে চাই যে আদালতে এদের বিচার হচ্ছে, অপরাধ প্রমাণিত হচ্ছে আর অপরাধের জন্যে তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি হচ্ছে।

দেশে গণতন্ত্র থাকলে আজকে এইটা নিয়ে এমপি সাহেবরা কথা বলতেন। সংসদ অধিবেশন থাকলে সংসদে বলতেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর কাছে জানতে চাইতেন কি ব্যাবস্থা নিয়েছে সরকার, কি করছে পুলিশ? অধিবেশন না থাকলে ও প্রেসের মাধ্যমে বা ব্যক্তিগত পর্যায়ে হোম মিনিস্টারকে বলতেন, কি করছেন আপনারা, বলেন, জবাব দেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদে জবাব দিতেন তার পুলিশ র‍্যাব বিজিবি কে কোথায় কি ব্যাবস্থা নিয়েছে? এখন তো আমাদের এমপি মন্ত্রী এরা কেউই এইসবের ধার ধারেন না।

পার্বত্য জেলার তিনজন নির্বাচিত এমপি আছেন। একজন সংরক্ষিত আসনের মহিলা এমপি আছেন। চতুর্থজন আমার বন্ধু- বাকি তিন এমপি কি করবেন জানিনা, মহিলা এমপি জেএফ আনোয়ার চিনু যাতে এই পোস্টটা দেখেন সেই জন্যে উনাকে ট্যাগ করে দিচ্ছি (JF Anwar Chinu)। আপনারা কি মেহেরবানী করে বলবেন পাহাড়ের মানুষের উদ্দেশ্যে আপনারা কি করছেন? আপনাদের জন্যে প্রশ্নগুলি আমি ক্রমিক নম্বর দিয়ে দিয়ে দিচ্ছিঃ

(ক) আপনারা যে চারজন এমপি আছেন, চারজনের একজনও কি একটিবারের জন্যেও সংসদের এই বিষয়টির উপর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে কোন প্রশ্ন করেছেন?

(খ) আপনারা কি জানেন সারা দেশের জনসংখ্যা অনুপাতে নারী নির্যাতনের যে হার, বিশেষ করে ধর্ষণ, গণ ধর্ষণ ও ধর্ষণের পর হত্যা, পাহাড়ে নারীর প্রতি এইরকম সহিংসতার হার কি বেশী না কম? আপনাদের কারো কাছে কি এই পরসংখ্যানটি আছে যে এই বছরের এই সাত মাসে আপনাদের তিন জেলায় কয়জন নারী সহিংসতার শিকার হয়েছে? কি এদের নৃতাত্বিক পরিচয়? কয়জন বাঙালী আর কয়জন আদিবাসী? কি এদের বয়সের গ্রুপ? আছে এই তথ্য?

(গ) আপনারা কি কখনো পাহাড়ের নারী নির্যাতন নিয়ে সংসদে সাধারণ আলোচনা বা বিশেষ আলোচনা বা কোনপ্রকার কোন আলোচনার জন্যে নোটিশ দিয়েছেন? বা চেষ্টা করেছেন?

(ঘ) আপনারা কি কখনো সংসদে বা সংসদের বাইরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর কাছে জানতে চেয়েছেন পাহাড়ে আদিবাসী নারীর প্রতি যে নির্যাতন হয় তার কয়টির বিচার হয়েছে? কয়জনের শাস্তি হয়েছে? শাস্তিপ্রাপ্তরা কারা? কি শাস্তি হয়েছে? ওরা এখন কোথায় আছে? বা যদি বিচার না হয়ে থাকে তাইলে কেন বিচার হয়নি? কেন বিচার হয়নি?

আপনারা এমপি মানুষ, সংসদ সদস্য, আপনারা পুলিশও না মিলিটারিও না জজ না প্রসিকিউটর না। আপনারা যেটা করতে পারেন, যেটা আপনাদের কাজ, যেটা আপনাদের দায়িত্ব সেটাই বলছি। এর বাইরে কিছু না।

(২)
আদিবাসী নারীর প্রতি এইসব অত্যাচারের একটা জাতিগত দিক আছে। আমি জানি এই জাতিগত প্রশ্নটা আপনারা প্রকাশ্যে আলোচনা করতে চাননা। আমি এটাও জানি যে আপনাদের মধ্যে কেউ কেউ এমনকি আদিবাসী শব্দটাও ব্যাবহার করতে চান না। ঠিক আছে, সেইসব ইস্যু বাদ দিলাম। আদিবাসী বা সেটেলার বা চাকমা বা বাঙালী এইসব শব্দই বললাম না। কেবল নারীর প্রতি সহিংসতা হিসাবেই দেখেন এইসব ঘটনাবলী।

এই যে খাগড়াছড়িতে মেয়েটার সাথে যেটা ঘটেছে, ডিটেল বর্ণনা আমি দিতে পারবো না। আমার বুকে সেই শক্তি নাই যে এই কথাগুলি আমি কল্পনা করতে পারবো। আপনারা সেখানকার এমপি, আপনারা নিশ্চয়ই এই ঘটনা জানেন। আপনার যে চারজন এমপি আছেন, আমরা কি আপনাদের কাছে প্রত্যাশা করতে পারি আপনারা প্রেসের কাছে জানাবেন যে আপনারা কি করছেন এই ঘটনাটার ব্যাপারে।

দেখেন, এই যে শিশুটি, ছোট্ট একটা বাচ্চা মেয়ে, সে পাহাড়ি কি সেটেলার বাঙালী কি ত্রিপুরা সেই প্রশ্ন তো পরে। সবার আগে যে একটা বাচ্চা, মানুষের বাচ্চা। তাও সিরিয়া আমেরিকা প্যালেস্টাইন পাকিস্তান ইন্ডিয়া বা লেবাননের বাচ্চা না, আমার মেয়দের মতোই এই মেয়েটাও বাংলাদেশেরই একটা মেয়ে। আমার মেয়েরা বড় হয়েছে, কিন্তু ওরাও একসময় এই বয়সেরই ছিল। চিনুর বাচ্চারা আরও বড় হয়েছে, জানিনা চিনুর নিজের বাচ্চার বাচ্চা না হলেও ভাগ্নে ভাগ্নি বা ভাতিজা ভাতিজির সূত্রে এই বয়সের সূত্রে হলেও এই বয়সের নাতনীও সম্ভবত চিনুর আছে। অন্য তিনজন যে এমপি আছেন পাহাড়ের ওদেরও বাচ্চা কাচ্চা নাতী নাতনী আছে।

আপনারা কি এই শিশুটির ঐ ছবিটা দেখেছেন? আপনার নিজের সন্তান বা নাতী নাতনির কাছে কি জবাব দেবেন? কি করেছেন ওর ঘাতকের বিচারের জন্যে?

(৩)
অদ্ভুত এক ভীতির মধ্যে বাস করি আমরা। কখন সড়ক দুর্ঘটনায় মরি, কখন কে অপহরণ হয়ে যায়, কখন কে আমাকে মারধোর করে, কখন আমার শিশুটি...

একটি শিশুর জন্যে আমার দেশটা নিরাপদ না এই কথাটা আমি কি করে আমার সন্তানকে বলবো? আপনার সন্তানদেরকে আপনি কি করে বলবেন ওর জন্যে বা ওর সন্তানের জন্যে দেশটি নিরাপদ নয়? কি করে মুখ দেখাবেন বাচ্চাদের সামনে? একটি শিশুর মৃতদেহের ছবি ভেসে বেড়াচ্ছে অনলাইনে- শিশুটির সাথে কি করা হয়েছে সকলে জানে। কি করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আপনারা? কি করে খাচ্ছেন দাচ্ছেন পান চিবুচ্ছেন আর দলাদলি ভোটাভুটি করছেন?

আপনার দেশের শিশুরা যদি নিরাপদ না থাকে আপনি কার জন্যে পদ্মার উপর সেতু বাঁধবেন? আপনার শিশুকে যদি কয়েকটা তস্কর ধর্ষণ করে তার পর ওর সাথে, আপনারা জানে কি করেছে ওরা- আপনি কার জন্যে উন্নয়ন করবেন? এই উন্নয়ন দিয়ে আমি কি করবো? আপনি কার জন্যে ঐসব ভীষণ ফিসন তৈরি করছেন? ঐ কীটস্য কীট নোংরা হায়েনাদের জন্যে? আমার শিশুরাই যদি নিরাপদ না থাকে তাইলে এই দেশটা থেকেই বা কি লাভ? মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে, ও ভাই, ফুলগুলিকেই তো কচলে পিশে পায়ের নীচে পিষ্ট করছে!

আমপি সাহেবেরা আপনাদের কাছে অনুনয় করি, বিনয় করি, হাতে ধরি, পায়ে পড়ি- ঐ শিশুটা আমারও শিশু। ঐ শিশুটা আপনারও শিশু। আমার মেয়েরা যখন ছোট ছিল ওদের একটু শরীর অসুস্থ হলে আমাদের ঘুম নষ্ট হয়ে যেত। কেউ আমার শিশুর গায়ে হাত দিলে আমি সম্ভবত তাকে খুনও করে ফেলতে পারতাম। এই শিশুটিও তো আমারই শিশু। ওর গায়ে যারা হাত দিয়েছে তাকে কেন আমি খুন করবো না সেটা আমাকে বুঝিয়ে বলতে পারেন?

(৪)
আপনারা বিচারের ব্যাবস্থা করেন, অভিযুক্তদের ধরেন, অপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিত করেন। আপনারা যদি বিচারের ব্যাবস্থা করতে পারেন, সেটা হতে পারে একমাত্র যুক্তি কেন আমি আমার সন্তানের ঘাতককে নিজের হাতে হত্যা করবো না।

আর আপনারা যদি বিচারের ব্যাবস্থা না করেন, নানাপ্রকার কথার মারপ্যাঁচ করেন, আমাকে যদি আমার সন্তানের বিচারের জন্যে আপনাদের দরোজায় বছরের পর বছর ভিখিরির মতো ঘুরতে হয়- তাইলে আমার কি করা উচিৎ?

আর পাহাড়ের শিশুদের পিতামাতারা, বা সারাদেশের শিশুদের পিতামাতারও, কাল থেকে যদি ওদের সন্তানের ঘাতকদেরকে নিজেরাই হত্যা করবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়, সেটা কি আমাদের কারো জন্যে ভালো হবে?

 

লেখকঃ ইমতিয়াজ মাহমুদ, এডভোকেট, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট।

আপনার মন্তব্য

এ বিভাগের আরো খবর



আলোচিত