শিরোনাম

  নৌকার জয় সুনিশ্চিত : প্রধানমন্ত্রী   আজ ইউপিডিএফ’র ২০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী   এবার থাইল্যান্ডে বৈধ হলো গাঁজা   ইউপিডিএফ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সকলকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানালেন প্রসিত বিকাশ খীসা   চীনা শিশুরা আর স্কুল পালাতে পারবে না!   আবার ক্ষমতায় গেলে ভুল সংশোধন করা হবে : কাদের   প্রধানমন্ত্রী থেকে মাতৃভাষার বই পেয়েছে ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর শিশুরা   শুভ বড়দিন আজ   রোহিঙ্গাদের জন্য শীতবস্ত্র পাঠাল ভারত   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪০০ অধিক ছাড়িয়েছে   টাকার মালা উপহার পেলেন ফখরুল!   মধ্যরাত থেকে নির্বাচনী মাঠে সেনাবাহিনী   ভোটের দিন ২৪ ঘণ্টা সব যান চলাচল বন্ধ   সেনা মোতায়েনে ভোটারদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসবে: সিইসি   পানছড়িতে ইউপিডিএফের নির্বাচনী অফিসে এলোপাতাড়ি ব্রাশ ফায়ারে ২ জন নিহত!   জেএসসি ও পিইসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ   আগামী ৩০ তারিখ আমরা নৌকার বিজয় নিয়ে ঘরে ফিরবো: দীপংকর তালুকদার   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২২ জন   যারা মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদের ভোট দেবেন নাঃ প্রধানমন্ত্রী   ২৮ ডিসেম্বর থেকে ১ জানুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত ৪ দিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা
প্রচ্ছদ / আন্তর্জাতিক / আরাকান আর্মির সাথে সংঘর্ষে মিয়ানমারে উচ্চপদস্থ ৭ সেনা নিহত

আরাকান আর্মির সাথে সংঘর্ষে মিয়ানমারে উচ্চপদস্থ ৭ সেনা নিহত

প্রকাশিত: ২০১৮-১২-০৭ ১৩:৫০:০৫

   আপডেট: ২০১৮-১২-০৭ ১৭:২৩:২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক >>

উত্তর রাখাইনে মিয়ানমারে বিদ্রোহী সংগঠন 'আরাকান আর্মি'র বাহিনীর হামলায় কিছু উচ্চপদস্থ সৈন্য নিহত হয়েছে বলে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করেছে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর প্রধান কার্যালয়। বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) রাতে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

তবে কতজন মারা গেছে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়নি। তবে কিছু আরাকান বাহিনীর সদস্য প্রাণহানি হয়েছে। দুইজন 'আরাকান আর্মি'র বাহিনীর সশস্ত্র সৈন্য মিয়ানমার সেনাবাহিনী আটক করেছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

বিবৃতিতে থেকে জানা গেছে, গত ৩, ৪, ও ৫ ডিসেম্বর বাংলাদেশ-মায়ানমার সীমান্ত বরাবর ক্লিয়ারেন্স অপারেশন পরিচালনা করার সময় এ সংঘর্ষ হয়।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযোগ, মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্ত বরাবর যে সীমান্ত বাঁধ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে তা নির্মাণে বাঁধা দিচ্ছে আরাকান আর্মি।


আরাকান আর্মির প্রধান তুয়ান মার্ট নায়াং সহ তাঁদের পোশাক।

প্রায় ৮০ জন মিয়ানমারে বিদ্রোহী সংগঠন 'আরাকান আর্মি'র বাহিনীর সৈন্য ল্যান্ডমাইন আক্রমণ সহ সেনাদের কাটাতারের ইউনিট ধ্বংস করেছিল।

বিবৃতিতে হামলার নিন্দা জানিয়ে বলা হয়েছে, আরাকান আর্মি সীমান্ত অঞ্চলে অস্থিরতা সৃষ্টি করেছে।

এদিকে, আরাকান আর্মিরা বিবৃতিতে ঘোষণা দিয়েছে উত্তর বুদায়টং এলাকায় আরাকান আর্মির নিয়ন্ত্রিত এলাকায় সেনারা প্রবেশ করলে সংঘর্ষ হয়। এতে ৭ জন সেনাবাহিনী মারা যায়।

এছাড়াও আরাকান আর্মি ঘোষণা দিয়েছে, আগামীবার শত্রুদের মরদেহ, তাদের আগ্নেয়াস্ত্র এবং সামরিক সরঞ্জাম এবং যুদ্ধক্ষেত্রের রেকর্ড প্রকাশ করবে।

সম্প্রতি নভেম্বর থেকে একের পর এক হামলায় মিয়ানমারের সরকারী বাহিনী কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। আরাকান আর্মি বলছে গত নভেম্বর মাসে উত্তর রাখাইন চিন অঞ্চলে সংঘর্ষে ২০ জন মিয়ানমারের আর্মিকে খতম করেছে।

যা একেঅপরের দুঃসাহসী যুদ্ধ এ অঞ্চলে আরো ঘটতে পারে এমনতাই জানিয়েছে মিয়ানমার সংবাদ মাধ্যম ইরাবতি।

আরাকান আর্মির প্রেস রিলিজ সূত্রে 'ইরাবতি' আরো জানায়, বিদ্রোহীরা উত্তর রাখাইন বুদাইটং অঞ্চলে মিয়ানমার মিলিটারি লাইট ইনফ্যান্টরিজ নং ৩৭৩ রেজিমেন্টে নং- ৫৩৯ , ৫৩৫, ৩৮০, ৫৪২ ও ২৮৯ রেজিমেন্টে সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে গত অক্টোবর থেকে যুদ্ধ করছে।

এর আগে (২২ নভেম্বর) উত্তর রাখাইন রাজ্যের সরকারী বাহিনী ও বিদ্রোহীদের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে ৩ জন মিয়ানমার সেনাবাহিনী নিহত হয়েছে বলে আরাকান আর্মি ঘোষণা দিয়েছিল । তবে মিয়ানমার সেনাবাহিনী মুখ খুলেনি। শুধু সম্প্রতির ঘটনাগুলোকে কেন্দ্র করে ৬ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে কয়েকজন উচ্চপদস্থ সেনা নিহত হয়েছে বলে বিবৃতিতে স্বীকার করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।  

উল্লেখ্য, আরাকান আর্মি মিয়ানমারের কোনো সরকারি বাহিনী নয়। এটি একটি বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহী সংগঠন। দ্য আরাকান আর্মি, যাদের সংক্ষিপ্ত কোড ‘এএ’। শুধু আরাকান আর্মিই নয়, মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে আরো বেশ কয়েকটি বিদ্রোহী গোষ্ঠী সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত।

২০০৯ সালের ১০ এপ্রিল সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

তাদের দাবি তারা জাতীয় পরিচয় ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ করে। এছাড়া জাতীয় মর্যাদা ও আরাকান ন্যাশনাল স্বার্থ উন্নয়নের জন্য তারা কাজ করে। এই বাহিনীর প্রধান তুয়ান মার্ট নায়াং।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত