শিরোনাম

  নৌকার জয় সুনিশ্চিত : প্রধানমন্ত্রী   আজ ইউপিডিএফ’র ২০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী   এবার থাইল্যান্ডে বৈধ হলো গাঁজা   ইউপিডিএফ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সকলকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানালেন প্রসিত বিকাশ খীসা   চীনা শিশুরা আর স্কুল পালাতে পারবে না!   আবার ক্ষমতায় গেলে ভুল সংশোধন করা হবে : কাদের   প্রধানমন্ত্রী থেকে মাতৃভাষার বই পেয়েছে ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর শিশুরা   শুভ বড়দিন আজ   রোহিঙ্গাদের জন্য শীতবস্ত্র পাঠাল ভারত   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪০০ অধিক ছাড়িয়েছে   টাকার মালা উপহার পেলেন ফখরুল!   মধ্যরাত থেকে নির্বাচনী মাঠে সেনাবাহিনী   ভোটের দিন ২৪ ঘণ্টা সব যান চলাচল বন্ধ   সেনা মোতায়েনে ভোটারদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসবে: সিইসি   পানছড়িতে ইউপিডিএফের নির্বাচনী অফিসে এলোপাতাড়ি ব্রাশ ফায়ারে ২ জন নিহত!   জেএসসি ও পিইসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ   আগামী ৩০ তারিখ আমরা নৌকার বিজয় নিয়ে ঘরে ফিরবো: দীপংকর তালুকদার   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২২ জন   যারা মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদের ভোট দেবেন নাঃ প্রধানমন্ত্রী   ২৮ ডিসেম্বর থেকে ১ জানুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত ৪ দিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা
প্রচ্ছদ / আন্তর্জাতিক / সরকারের প্রতিশ্রুতিতে অবশেষে শান্ত হয়েছে রোহিঙ্গারা

সরকারের প্রতিশ্রুতিতে অবশেষে শান্ত হয়েছে রোহিঙ্গারা

প্রকাশিত: ২০১৮-১১-২৮ ১২:১৭:৫৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক >>

জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থাকে "রোহিঙ্গা" জনগোষ্ঠিকে আইডি কার্ডসহ অন্তর্ভুক্ত করার দাবিতে কক্সবাজার জেলার উখিয়া অঞ্চলে রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পের নেতারা সোমবার থেকে তিন দিনের ধর্মঘট ডাক দেয়।

দাবি ছিল,

১. রোহিঙ্গা রিফিউজিদের স্মার্ট কার্ড নিতে বাধ্য করা যাবে না।
২. স্মার্ট কার্ড নিতে না চাইলে রোহিঙ্গাদের আটক রাখা যাবে না।
৩. স্মার্ট কার্ডে জাতিগত নাম ‘রোহিঙ্গা’ উল্লেখ করতে হবে। স্মার্ট কার্ডে ‘জোর পূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিক উল্লেখ করা যাবে না’।
৪. বায়োডাটা (পারিবারিক তথ্য) সংগ্রহ করা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং ইতোমধ্যে যে সব তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে সেগুলো মিয়ানমার সরকারকে প্রদান করা যাবে না।

ইউএনএইচসিআর’ কর্তৃক মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের জন্য তৈরি করা পরিবারভিত্তিক তালিকায় ‘রোহিঙ্গা’ উল্লেখ না থাকায় তারা অনশনে চলে যায়।

এক বিবৃতিতে রোহিঙ্গারা জানায়, মিয়ানমারে তাদের জাতিগতভাবে স্বীকৃতি না থাকায় তারা অত্যাচারে শিকার হচ্ছেন।মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের জন্য করা পরিবারভিত্তিক তালিকায় “রোহিঙ্গা” শব্দটি উল্লেখ না থাকায় আমরা বিচলিত হয়ে পড়েছি।’

মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের এখনো রোহিঙ্গা সংখ্যালঘু বলে স্বীকৃতি দেয়নি। নিকট-অতীত থেকে রোহিঙ্গাদের 'বাঙালি' বলে আখ্যায়িত করে আসছে।জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইতিমধ্যে রোহিঙ্গাদের যাবতীয় তথ্য নিচ্ছেন। যারমধ্যে রয়েছে- (ফিঙ্গার প্রিন্ট, আইরিস স্ক্যান,রোহিঙ্গাদের সঠিক নথিপত্র)।

বিবৃতিতে তারা আরো জানায়, আমরা বিশ্বাস করি (ইউএনএইচসিআর) মায়ানমার সরকারের সাথে প্রত্যর্পণের জন্য আমাদের দাবিগুলো মেনে নেবে। তা না হলে আমাদের বাঙালি বা আরসা সদস্য বলে চিহ্নিত করবে।যা আমাদের সমস্যা হতে পারে।

এদিকে, তাদের ডাক দেওয়া ধর্মঘট তুলে নিয়েছে বলে জানিয়েছে মিয়ানমার বহুল প্রচারিত সংবাদ মাধ্যম ইরাবতি।বাংলাদেশ সরকার জাতিসংঘের প্রতিনিধিদের সাথে কথা বলবে যাতে আইডি কার্ডে 'রোহিঙ্গা ' বলে উল্লেখ থাকে। এ কারণে তিন দিনের ধর্মঘট আপতত বন্ধ রয়েছে।

সর্বশেষ বিবৃতিতে রোহিঙ্গারা জানিয়েছে, ধর্মঘট স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি কারণ আমাদের দাবিগুলো নিয়ে আলোচনা করার জন্য ইতিমধ্যে সরকার নড়েচড়ে বসেছে ও মেনে নিয়েছে।

জানা গেছে, এ পর্যন্ত প্রায় ২৯০০০ বেশী রোহিঙ্গা আইডি কার্ডের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছে।

উল্লেখ্য, (আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি) হচ্ছে মিয়ানমারে একটি জঙ্গি সশস্ত্র দল। ২০১৭ সালে আগস্ট মাসে নিরাপত্তা বাহিনীর চেকপোস্টে হামলা চালায়। এতে পুলিশ মারা যায়। রোহিঙ্গা জঙ্গিদের হামলার পর সন্ত্রাসীদের দমন করার নামে রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকায় সামরিক অভিযান শুরু করেছিল মিয়ানমার। এর পর লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

সূত্রঃ ইরাবতি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত