শিরোনাম

  নৌকার জয় সুনিশ্চিত : প্রধানমন্ত্রী   আজ ইউপিডিএফ’র ২০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী   এবার থাইল্যান্ডে বৈধ হলো গাঁজা   ইউপিডিএফ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সকলকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানালেন প্রসিত বিকাশ খীসা   চীনা শিশুরা আর স্কুল পালাতে পারবে না!   আবার ক্ষমতায় গেলে ভুল সংশোধন করা হবে : কাদের   প্রধানমন্ত্রী থেকে মাতৃভাষার বই পেয়েছে ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর শিশুরা   শুভ বড়দিন আজ   রোহিঙ্গাদের জন্য শীতবস্ত্র পাঠাল ভারত   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪০০ অধিক ছাড়িয়েছে   টাকার মালা উপহার পেলেন ফখরুল!   মধ্যরাত থেকে নির্বাচনী মাঠে সেনাবাহিনী   ভোটের দিন ২৪ ঘণ্টা সব যান চলাচল বন্ধ   সেনা মোতায়েনে ভোটারদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসবে: সিইসি   পানছড়িতে ইউপিডিএফের নির্বাচনী অফিসে এলোপাতাড়ি ব্রাশ ফায়ারে ২ জন নিহত!   জেএসসি ও পিইসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ   আগামী ৩০ তারিখ আমরা নৌকার বিজয় নিয়ে ঘরে ফিরবো: দীপংকর তালুকদার   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২২ জন   যারা মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদের ভোট দেবেন নাঃ প্রধানমন্ত্রী   ২৮ ডিসেম্বর থেকে ১ জানুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত ৪ দিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা
প্রচ্ছদ / আন্তর্জাতিক / ব্যবসা করা আর দেশ চালানো এক নয় : ট্রাম্প

ব্যবসা করা আর দেশ চালানো এক নয় : ট্রাম্প

প্রকাশিত: ২০১৮-০৮-০৬ ২২:৫২:০৮

অনলাইন ডেস্ক

এতকাল ট্রাম্প প্রশাসনের সমালোচনা করলেও মার্কিন প্রেসিডেন্টকে সরাসরি ব্যক্তিগত আক্রমণ করেনি চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম। কিন্তু এবার ‘পিপলস ডেইলি’ পত্রিকার বৈদেশিক সংস্করণের এক সংবাদভাষ্যে সেই অভূতপূর্ব কাণ্ডই দেখা গেল। চীনের সরকারি এ পত্রিকাটি বলেছে, ‘স্ট্রিট ফাইটার' বা রাস্তার যোদ্ধার মতো ট্রাম্প ছলনার নাটক করে ভয়ভীতি দেখিয়ে কিছু সুবিধা আদায় করতে চাইছেন। কিন্তু বাকিরাও সেই নাটকের অংশ হবে, এমন সাধ মোটেই পূর্ণ হবে না।

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সংবাদপত্রটিতে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করে লেখা হয়েছে, ' ‘ব্যবসা করা আর দেশ চালানো এক নয়।'' তাঁর এমন আচরণের কারণে রাষ্ট্র হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় বিশ্বাসযোগ্যতা বিপন্ন হচ্ছে বলেও সাবধান করে দেয়া হয়েছে।

কিন্তু কেন এ আক্রমণ? একটু পেছন ফিরে দেখা যাক।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর ‘অ্যামেরিকা ফার্স্ট' নীতির আওতায় বৈদেশিক বাণিজ্যের ক্ষেত্রে তাঁর দেশের প্রতি যাবতীয় ‘অন্যায়' দূর করতে চান। তাঁর দাবি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে গোটা বিশ্ব এতকাল অনেক অন্যায় সুবিধা পেয়ে এসেছে। এর ফলে মার্কিন শ্রমিকশ্রেণী ও কম্পানিগুলোর বিপুল ক্ষতি হয়েছে। তো এখন সেই ‘বৈষম্য' দূর করতে চান ট্রাম্প সাহেব, আর তা করতে গিয়ে তিনি একের পর এক শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নিয়ে চলেছেন। যেমন, ইউরোপ ও চীনসহ গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক সহযোগীদের উপর চাপ সৃষ্টি করতে ওসব দেশ থেকে একাধিক পণ্যের আমদানির ওপর শুল্ক চাপাতে চান তিনি। তারপর দ্বিপাক্ষিক চুক্তির মাধ্যমে অ্যামেরিকার জন্য সুবিধাজনক শর্তে বাণিজ্যিক সম্পর্ক ঢেলে সাজাতে চান।

সেসব ''চাওয়া''কে ''পাওয়ায়'' পরিণত করতে গিয়ে মি ট্রাম্প যা করছেন তার সবকিছু অবশ্য পরিকল্পনা অনুযায়ী চলছে না। বিশেষ করে চীন তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে। অ্যামেরিকার বিরুদ্ধে পাল্টা শাস্তিমূলক পদক্ষেপের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মুক্তবাণিজ্য কাঠামোর সুরক্ষায় সে দেশ নেতৃত্ব দিতে এগিয়ে এসেছ। শুধু জুলাই মাসেই অ্যামেরিকা ও চীন পরস্পরের ওপর প্রায় ৩,৪০০ কোটি ডলার মূল্যের শাস্তিমূলক শুল্ক চাপিয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে চীন থেকে আমদানির ওপর নতুন করে আরও ১,৬০০ কোটি ডলারের শুল্ক চাপানোর ইঙ্গিত দিয়েছে ওয়াশিংটন।

এমন বাণিজ্যযুদ্ধের প্রেক্ষাপটেই মার্কিন প্রেসিডেন্টকে চীনের সরকারি পত্রিকার এ আক্রমণ। সূত্র : ডিডাব্লিউ

আপনার মন্তব্য

আলোচিত