শিরোনাম

  ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জন্য মাতৃভাষায় পুস্তক প্রকাশনার বিধান রেখে খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা   সরকারী চাকরিতে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য কোটা না হলেও সমস্যা হবে না   রুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু   দুই আদিবাসী কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি   দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি ও ভারী বর্ষণ হতে পারে   আদিবাসী মানবাধিকার সুরক্ষাকর্মীদের সম্মেলন ২০১৮ উদযাপন   ব্লগার বাচ্চু হত্যার সঙ্গে ‘জড়িত’ ২ জঙ্গি নিহত   জুমের বাম্পার ফলনে রাঙ্গামাটির চাষিদের মুখে হাসি   সরকারি চাকরিতে আদিবাসী কোটা বহাল দাবি জানাল আদিবাসীরা   আয়ারল্যান্ড প্রবাসী বাংলাদেশের এক মন্ত্রী দ্বারা হেনস্ত হওয়াতে হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নিন্দা   শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পেয়েছে   মিয়ানমারে রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত   শহীদ আলফ্রেড সরেন হত্যার ১৮ বছর: হত্যাকারীদের দ্রুত বিচারের দাবি জাতীয় আদিবাসী পরিষদের   ভারতের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে বাংলাদেশের মেয়েরা   সরকারী চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা ছাড়া সব কোটা বাতিল হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী   জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান মারা গেছেন   ঈদের ছুটি কাটানো হলোনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার নিরীহ ধীরাজ চাকমার   খাগড়াছড়িতে পৃথক ঘটনার জন্য জেএসএস(সংস্কারবাদী) ও নব্য মুখোশ বাহিনীকে দায়ী করেছে : ইউপিডিএফ   নানিয়ারচর থেকে খাগড়াছড়ি   খাগড়াছড়িতে ৬ জনকে গুলি করে হত্যা !
প্রচ্ছদ / আন্তর্জাতিক / সশস্ত্র সংঘাত বন্ধ করুন , ঐক্যবদ্ধ হোন : বিদ্রোহীদের প্রতি মিয়ানমার সেনাপ্রধানের আহবান

সশস্ত্র সংঘাত বন্ধ করুন , ঐক্যবদ্ধ হোন : বিদ্রোহীদের প্রতি মিয়ানমার সেনাপ্রধানের আহবান

প্রকাশিত: ২০১৮-০৭-১১ ২২:২১:৩৮

   আপডেট: ২০১৮-০৭-১১ ২২:৪৬:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর ও ডি ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চির শান্তি সম্মেলন উদ্বোধন করার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ৬ দিনের জন্য জাতিগত বিদ্রোহী নেতা ও প্রতিনিধিদের বিশাল সম্মেলন।

প্যাঙ্গলং ২১ শতক উপলক্ষে ১১ জুলাই বুধবার রাজধানী নেপিডোটে এই সম্মেলন আয়োজন করা হয়। সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে জাতিগত সম্প্রদায়ের মধ্যে শান্তির ভাবমূর্তি তুলে ধরা।

শুধু তাই নয় জাতিগত সম্প্রদায়ের মধ্যে যে সমস্যা রয়েছে তা প্রতিনিধিদের মাধ্যমে তুলে ধরা।

কয়েক দশকব্যাপী সংঘাত বন্ধের প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে দেশটির সশস্ত্র জাতিগত গ্রুপগুলো মিয়ানমারের সরকার ও সামরিক বাহিনীর সঙ্গে এই শান্তি সম্মেলনে অংশ নিয়েছে।

শান্তি সম্মেলনটির লক্ষ্য হলো সংলাপের মাধ্যমে জাতিগোষ্ঠীগুলোকে ঐক্যবদ্ধ এবং একটি গণতান্ত্রিক ফেডারেল ইউনিয়ন গঠন করা।

ঐতিহাসিক এই পাংলং সম্মেলনে সরকারের মন্ত্রী, পার্লামেন্ট সদস্য, সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তা এবং জাতিগত ৭টি সশস্ত্র সংগঠনের প্রতিনিধিদের অংশ নেন। এর মধ্যে রয়েছে- (ইউনাইটেড ওয়া স্টেট আর্মি), (শান স্টেট আর্মি), (কারেননি জাতীয় প্রগতিশীল পার্টি), (কাচিন ইন্ডিপেন্ডেন্স আর্মি), (মিয়ানমার ডেমোক্রাটিক এলিয়েন্স আর্মি), (থাং অং ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি) ও (আরাকান আর্মি)।

মিয়ানমার আর্মি প্রধান মিন অং হ্লাই জাতিগত সম্প্রদায়ের নেতাদের উদ্দেশ্যে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, জনগণের জন্য আমাদের এখনো অনেক কিছু করার আছে। আমরা শুধু মুখে বলবো না, বাস্তবে করতে চায়। এ শান্তি সম্মেলনের উদ্দেশ্য হল দেশের অভ্যন্তরীন সমস্যা সমাধান করা। এজন্য আমরা নেতাদের কিছু বলার সুযোগ করে দিয়েছি। আপনারা সমস্যার কথা তুলে ধরুন। ঐক্যবদ্ধ হোন।

সেনাপ্রধান বলেন, সশস্ত্র সংঘাত দেশের উন্নয়নের বাধা।

তিনি আরো বলেন, আপনারা যদি সত্যিই দেশকে ভালবাসেন তাহলে সশস্ত্র সংঘাত চিরতরে মুছে ফেলুন। ঐক্যবদ্ধ গড়ে তুলুন। আমাদের সহায়তা সবসময় থাকবে।

মিয়ানমারের বিভিন্ন দলের আমন্ত্রিত রাজনীতিবিদ এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ প্রায় এক হাজার অধিক মানুষ এতে যোগ দিয়েছেন। সম্মেলনে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি এবং মিয়ানমারে থাকা বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিকরাও উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের বিকেলে সেনাপ্রধান সম্মেলনে অংশগ্রহণ করা জাতিগত সম্প্রদায়ের বড় বড় নেতাদের সাথে সাক্ষাৎ করেন।

মিয়ানমারে প্রায় সাত দশক ধরে সীমান্ত প্রদেশগুলোতে চলমান জাতিগত সংখ্যালঘু বিদ্রোহ বন্ধে প্রায় ৬ দিনব্যাপী ২১ শতক উপলক্ষে বিশাল শান্তি সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে। প্রায় ৬ দিনব্যাপী এ সম্মেলনের লক্ষ্য জাতিগত সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করা এবং সংলাপের মাধ্যমে একটি গণতান্ত্রিক ফেডারেল ইউনিয়ন গঠন করা।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত