শিরোনাম

  ছেলেদের চেয়ে এবারও এগিয়ে মেয়েরা   চট্টগ্রাম বোর্ডের পাশের হার ৬২.৭৩ %   যারা ফেল করেছে তাদের বকাঝকা করবেন না : প্রধানমন্ত্রী   এইচএসসি তে পাসের ধস নেমেছে এবার   এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার এবার ৬৬.৬৪   হাসপাতাল ছাড়ার পর এবার থাই কিশোররা সবাই শ্রামণ হয়ে প্রবজ্যা গ্রহণ করবে   থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া কিশোররা হাসপাতাল ছেড়েছে   ৮ দল নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের আত্মপ্রকাশ   আগামীকাল এইচএসসির ফল প্রকাশ হবে   নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম শতবার্ষিকী আজ   চট্টগ্রাম আঞ্চলিক অফিসেই মিলবে হারানো জাতীয় পরিচয়পত্র   উ. কোরিয়াকে নিরাপত্তা নিশ্চয়তা প্রদানে অংশ নিতে প্রস্তুত রাশিয়া   রাঙামাটিতে ইউপিডিএফ নেতা রাহেলকে ৪ দিনের রিমান্ড দিয়েছে আদালত   এবার খাগড়াছড়িতে সেটেলার কর্তৃক আদিবাসী স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ   দেশে ছয় মাসে ধর্ষণের শিকার ৫৯২: মহিলা পরিষদ   ফ্রান্সে বিশ্বকাপ বিজয় উল্লাস করতে গিয়ে ব্যাপক সংঘর্ষ-লুটপাট, নিহত ২   মিয়ানমারে জাতিগত ৩ গ্রুপের বিদ্রোহীদের সংঘর্ষে শতাধিক মানুষ পালিয়েছে   নির্বাচন আসছে, সংখ্যালঘুদের মধ্যে চিন্তা বাড়ছে: জাফর ইকবাল   ডুবুরী সানামের জন্য শোক ও মঙ্গলকামনা করেছেন গুহায় আটকা পড়া কিশোররা   আয়ারল্যান্ডে ‘হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের’ “অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনের ডাক”
প্রচ্ছদ / আন্তর্জাতিক / দুই আদিবাসী শিক্ষিকাকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী

দুই আদিবাসী শিক্ষিকাকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী

প্রকাশিত: ২০১৮-০৬-২৯ ২১:৩০:১২

   আপডেট: ২০১৮-০৬-২৯ ২১:৫২:০১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মিয়ানমার শান রাজ্যে ধর্ষণের পর দুই জাতিগত আদিবাসী শিক্ষিকাকে খুন করা হয়েছে।

কুটকাই প্রত্যন্ত গ্রামে ২০১৫ সালে ১৯ জানুয়ারী এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে দায়ী করা হয়েছে। তবে মিয়ানমার সেনাবাহিনীরা অভিযোগ অস্কীকার করেছে।

আজ ২৯ জুন মিয়ানমার সংবাদ মাধ্যম ইরাবতি এ তথ্য জানিয়েছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং দাবি করেন, তিন বছর আগে যে দুই শিক্ষিকাকে ধর্ষণের পর নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে তা কোনভাবে মিয়ানমার সেনাবাহিনী জড়িত নয়।

তবে এঘটনায় মিয়ানমার স্থানীয় জাতিগত বিদ্রোহী সংগঠন (কাচিন ইন্ডিপেন্ডেন্স আর্মি) মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে দায়ী করেছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার ২৮ জুন রাজধানী নেপিডোটে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে সেনাবাহিনী প্রধান এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত নয় বলে অভিযোগ অস্কীকার করেছেন।

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় উচ্চ পর্যায়ে সুষ্ঠ তদন্ত করা হচ্ছে।

জানা গেছে, কাচিন ব্যাপটিস্ট কনভেনশন (কেবিসি) একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাথে দুই শিক্ষিকা সহ ২০ জন কাজ করেন। এর মধ্যে মারন লুরা ও থাংবোকন নামে দুই শিক্ষিকাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়।

এছাড়াও স্থানীয়রা এ ঘটনায় মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ব্যাটালিয়ন ৫০৩ পদাদিক সেনাসদস্য জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়।

সংগঠনের এক মুখপাত্র বলেন,  হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের এখনো চিহ্নিত করা যায়নি। তবে আমরা জানি এ ঘটনা কারা ঘটিয়েছিল। কিন্তু তারা বারবার অভিযোগ অস্কীকার করছে।

পুলিশের গঠিত একটি তদন্ত কমিশন এ ঘটনায় তদন্ত চালাচ্ছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত