শিরোনাম

  ভিয়েতনামে বন্যায় ২০ জনের মৃত্যু , ১ লাখ ১০ হাজার হেক্টর জমির ফসল বিনষ্ট   দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা   ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রী সতর্ক করেছেন: কাদের   থানকুনি পাতার জাদুকরি উপকারিতা   চট্টগ্রাম কর্ণফুলীতে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ, গ্রেফতার ৩   পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নে সেনাবাহিনীর ভূমিকা অপরিসীম : প্রধানমন্ত্রী   চিকিৎসা খাতে নতুন আবিষ্কার রঙিন ও থ্রি-ডি এক্স-রে   গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেঁদেছেন প্রধানমন্ত্রী   না ফেরার দেশে রাজীব মীর   নানিয়াচর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রীতিময় চাকমাকে অপহরণ   ছেলেদের চেয়ে এবারও এগিয়ে মেয়েরা   চট্টগ্রাম বোর্ডের পাশের হার ৬২.৭৩ %   যারা ফেল করেছে তাদের বকাঝকা করবেন না : প্রধানমন্ত্রী   এইচএসসি তে পাসের ধস নেমেছে এবার   এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার এবার ৬৬.৬৪   হাসপাতাল ছাড়ার পর এবার থাই কিশোররা সবাই শ্রামণ হয়ে প্রবজ্যা গ্রহণ করবে   থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া কিশোররা হাসপাতাল ছেড়েছে   ৮ দল নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের আত্মপ্রকাশ   আগামীকাল এইচএসসির ফল প্রকাশ হবে   নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম শতবার্ষিকী আজ
প্রচ্ছদ / আন্তর্জাতিক / রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরে আনার আহ্বান কফি আনানের

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরে আনার আহ্বান কফি আনানের

প্রকাশিত: ২০১৭-১০-১৪ ১২:৪৪:০৮

   আপডেট: ২০১৭-১০-১৪ ১৩:৩০:০৫

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

জাতিসংঘের প্রাক্তন মহাসচিব কফি আনান উদ্বাস্তু রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে আনার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

শুক্রবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের ইকোসক চেম্বারে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে আনার জন্য আন্তর্জাতিক ভাবে চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। রোহিঙ্গাদের উপর চলমান সহিংতায় লাখ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। আনান আরো বলেন, শরণার্থী সংকট কাটিয়ে ওঠার জন্য বিশ্ব শক্তি দেশগুলোর সামরিক ও বেসামরিক নেতাদের সাথে কাজ করতে হবে।

"আমি আশাবাদী যে, যে প্রস্তাবটি বেরিয়ে আসে তা সরকারকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছে এবং এমন শর্ত তৈরি করবে যা শরণার্থীদের মর্যাদা এবং নিরাপত্তার অনুভূতি নিয়ে ফিরে আসবে," এমনই ব্যক্ত করেছেন কপি আনান।

তিনি আরো বলেন,"তাদের ক্যাম্পে ফিরে যাওয়া উচিত নয়। এজন্য তাদের পুনরায় প্রত্যাবাসন করা জরুরী।আগস্ট মাস থেকে শুরু করে সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের উপর দমন-পীড়ন জাতিগত শুদ্ধি অভিযানকে জাতিসংঘ নিন্দা জানিয়েছে।

মায়ানমারের কর্তৃপক্ষ বলছে যে, তারা রোহিঙ্গা জঙ্গিদের দমন করছে এজন্য তারা অভিযান অব্যাহত রেখেছে যা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনের বিষয়টি একটি বড় বাধা হিসাবে রূপ নেয়।

তিনি "আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এখন সামরিক বাহিনীর ওপর চাপ সৃষ্টি করতে শুরু করেছে," "সামরিক-থেকে-সামরিক যত আলোচনা" মায়ানমারকে তার অপারেশনে বদ্ধপরিকর করার লক্ষ্যে লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে বলে জানান।

তিনি কাউন্সিলকে "রোডম্যাপ" এ মিয়ানমারের সাথে একমত হওয়ার আহ্বান জানান এবং সতর্ক করেন।

মিয়ানমার ভিত্তিক নিউজ "মিজিমা" প্রতিবেদনে আরো বলা হয়,  আগস্টের শেষ দিকে, আনান রাখাইন রাষ্ট্রের উপদেষ্টা কমিশনের চূড়ান্ত রিপোর্ট উপস্থাপন করেন এবং তিনি মায়ানমারের কার্যত নেতা অং সান সুচির অনুরোধে সভাপতিত্ব করেন।

সর্বশেষে তিনি মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানিয়ে তাদেরকে নাগরিকত্ব তুলে দেওয়ার সুপারিশ করেন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত