শিরোনাম

  নৌকার জয় সুনিশ্চিত : প্রধানমন্ত্রী   আজ ইউপিডিএফ’র ২০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী   এবার থাইল্যান্ডে বৈধ হলো গাঁজা   ইউপিডিএফ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সকলকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানালেন প্রসিত বিকাশ খীসা   চীনা শিশুরা আর স্কুল পালাতে পারবে না!   আবার ক্ষমতায় গেলে ভুল সংশোধন করা হবে : কাদের   প্রধানমন্ত্রী থেকে মাতৃভাষার বই পেয়েছে ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর শিশুরা   শুভ বড়দিন আজ   রোহিঙ্গাদের জন্য শীতবস্ত্র পাঠাল ভারত   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪০০ অধিক ছাড়িয়েছে   টাকার মালা উপহার পেলেন ফখরুল!   মধ্যরাত থেকে নির্বাচনী মাঠে সেনাবাহিনী   ভোটের দিন ২৪ ঘণ্টা সব যান চলাচল বন্ধ   সেনা মোতায়েনে ভোটারদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসবে: সিইসি   পানছড়িতে ইউপিডিএফের নির্বাচনী অফিসে এলোপাতাড়ি ব্রাশ ফায়ারে ২ জন নিহত!   জেএসসি ও পিইসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ   আগামী ৩০ তারিখ আমরা নৌকার বিজয় নিয়ে ঘরে ফিরবো: দীপংকর তালুকদার   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২২ জন   যারা মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদের ভোট দেবেন নাঃ প্রধানমন্ত্রী   ২৮ ডিসেম্বর থেকে ১ জানুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত ৪ দিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা
প্রচ্ছদ / রাজনীতি / সরকার যখন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শব্দটি চাপিয়ে দিয়েছিল তখন দীপংকর সাহেব কোথায় ছিলেন?

সরকার যখন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শব্দটি চাপিয়ে দিয়েছিল তখন দীপংকর সাহেব কোথায় ছিলেন?

প্রকাশিত: ২০১৮-১২-১৮ ১৯:২২:৩৮

   আপডেট: ২০১৮-১২-২২ ২০:০৫:১৫

ফাইল ছবি।

>>

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতির সমিতির সহ-সভাপতি সাংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার বলেছেন, যখন পঞ্চদশ সংশোধনীতে পরিবর্তন এনে বলা হয়েছিল-বাংলাদেশের সকল নাগরিক বাঙালি বলে পরিচিত হইবেন। তারপর পাহাড়িদেরকে ক্ষুদ্র নৃ- জনগোষ্ঠী সম্প্রদায় হিসেবে পরিচিত হইবে।

তিনি বলেন, পাহাড়িদেরকে জুম্মো-হাপ্পো বললে ও তারা মেনে নিতে পারে। কিন্তু একটা জাতিকে হেয় করে ক্ষুদ্র নৃ- জনগোষ্ঠী শব্দটি চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে।

গত মঙ্গলবার(১৮ ডিসেম্বর) জুরাছড়ি উপজেলা যক্কা বাজারে নির্বাচনি প্রচারনা ও জনসমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

উষাতন বলেন, নৃ মানে মানুষ। আর ক্ষুদ্র মানে নিম্ন শ্রেণীর মানুষ। আমাদের কি নাম নেই? সেই শব্দটি কেন চাপিয়ে দেওয়া হবে? যখন পঞ্চদশ সংশোধনী হচ্ছে তখন আমাদের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী বানিয়ে দেওয়া হল। তখন দীপংকর সাহেব কোথায় ছিলেন? কেন তিনি চুপ করে বসে ছিলেন? এতদিন উপজাতি বলে এসেছেন মেনে নিয়েছি, জুম্মো-হাপ্পো বলেছেন তাও মেনে নিয়েছি কিন্তু ক্ষুদ্র নৃগোষ্টী মেনে নেওয়া যায় না।

পার্বত্য চট্টগ্রাম জেএসএসের সমর্থনে অতীতে যেসব মন্ত্রী আ’লীগে এমপি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন; তারা জনগণের জন্য কি করেছিলেন? সংবিধান যখন সংশোধন করা হচ্ছিল তখন তারা চুপ করে টেলিভিশনের সামনে বসে থেকেছিল। কোন কথা বলেননি। কারণ তারা অর্থের বিনিময়ে জনগণের সাথে ধোঁকাবাজি করেছিল এবং করছেন।

সরকার যখন নৃ ও ক্ষুদ্র গোষ্টি শব্দটি চাপিয়ে দিয়েছিল তখন তারা কি জানেনা এ শব্দটি দিয়ে গোটা পার্বত্য চট্টগ্রাম তথা প্রান্তিক জনগোষ্ঠিদের হেয় করা হয়েছে।

তাহলে আপনারা বলেন, এসব এমপি কি আমাদের দরকার? না পাহাড়িদের দরকার? যে সংসদ সদস্য নিজেদের জনগোষ্ঠির অসুবিধার কথা সরকারের সামনে খোলাসা করতে পারেনা সেই এমপি কি আমাদের দরকার?

আপনারা ভাবুন আপনি কাকে ভোট দেবেন।

শান্তি চুক্তির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, জেলা পরিষদ ক্ষমতায় কে বসে আসে। আপনার আমার মা-বোনের রক্তের বিনিময়ে এ শান্তি চুক্তি হয়েছিল অথচ জেলা পরিষদে মেম্বার-চেয়ারম্যান বানিয়ে জনগণের সাথে ধোঁকাবাজি করছে। কারণ সরকার যেতা বলে সেটাই করে থাকে । কোন কিছু বিবেচনা ছাড়া, জনগণের ক্ষতি হচ্ছে কিনা চিন্তা না করে তারা দিনের পর দিন বেইজ্জত করে যাচ্ছে।

উষাতন তালুকার আরো বলেন, আপনাদের ভোট দিয়েছেন বলে আজ মহান সংসদে পাহাড়ি জনগোষ্ঠির সুখ- দুঃখের কথা উপস্থাপন করতে পারি। শুধু তাই নয় আপনারা ভোট দিয়েছেন বলে দেশে-বিদেশে আমি প্রতিবাদ ও পাহাড়ি জনগোষ্ঠির কথা বলেছি ও প্রচার করেছি। আপনাদের ভোট আমাদের পাহাড়ী জনগোষ্ঠির জন্য অনেক মূল্যবান।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত