শিরোনাম

  ২৪ ডিসেম্বর থেকে পার্বত্য এলাকাসহ মাঠপর্যায়ে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন করা হবে   গ্রাম আদালতের একটি সফল গল্প   টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগের পর চার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব বণ্টন   আগামী ২৪ ডিসেম্বর জেএসসি ও প্রাথমিক সমাপনীর ফল প্রকাশ   নির্বাচনকালীন ইউএনও-ডিসির স্বাক্ষরে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা : শিক্ষা মন্ত্রণালয়   খালেদার মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের বিভক্ত আদেশ   'তিন পার্বত্য জেলায় ৩৮ টি ভোটকেন্দ্রে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে'   সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ন নির্বাচন নিশ্চিত করার আহ্বান ইউরোপীয় দেশগুলোর   তরুণ ও নারী ভোটাররাই আওয়ামী লীগের বিজয়ের প্রধান হাতিয়ারঃ কাদের   গত ৫ বছরে জেএসএস এমপি উন্নয়ন করতে পারেনি, যা করেছে আওয়ামীলীগ করেছে : দিপংকর তালুকদার   এখন থেকে সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার আগে মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক   'বান্দরবানে বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই'   'নির্বাচনী প্রচারণায় রঙিন পোস্টার বা ব্যানার ব্যবহার করা যাবে না'   ৫৮টি নিউজ পোর্টাল খুলে দিয়েছে বিটিআরসি   বুধবার থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী   বিএনপি ক্ষমতায় এলে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করার চেষ্ঠা করবো: মনি স্বপন দেওয়ান   তিন পাহাড়ে নৌকা নিয়ে মাঠে দৌড়াবেন যারা   আগামীকাল খালেদা জিয়ার অগ্নিপরীক্ষা   হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, সফল হিরো আলমের চ্যালেঞ্জ   খাগড়াছড়িতে বনের রাজা পেয়েছেন ইউপিডিএফের প্রার্থী নতুন কুমার চাকমা
প্রচ্ছদ / রাজনীতি / সরকার রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দিতে বাধা দিয়েছে, রোহিঙ্গা শিশুদের কোলে নিয়ে বললেন খালেদা

সরকার রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দিতে বাধা দিয়েছে, রোহিঙ্গা শিশুদের কোলে নিয়ে বললেন খালেদা

প্রকাশিত: ২০১৭-১০-৩০ ১৯:৩৭:০৩

নিউজ ডেস্ক

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সরকার কূটনৈতিক তৎপরতায় ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে দিতে সরকার উল্লেখযোগ্য কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারেনি। রোহিঙ্গারা এখানে পরিবেশ নষ্ট করছে। গাছ ও পাহাড় কাটায় এখানকার পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে।

সোমবার দুপুর ১টার দিকে কক্সবাজারের উখিয়ার বাঘঘোনা কাটাখালী ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দেয়ার পরে বিএনপি চেয়ারপারসন এসব কথা বলেন।

সরকারের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া আরও বলেন, রোহিঙ্গাদের মধ্যে যেভাবে ত্রাণ দেয়া দরকার ছিল, সরকার তা পারেনি। বরং তারা বিভিন্নভাবে ত্রাণ দিতে বাধা দিয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ খুব গরিব দেশ। লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে দীর্ঘদিন এখানে রাখা সম্ভব নয়। মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা ও কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর সমাধান খুঁজতে হবে। বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি জোরালো আহ্বান জানান তিনি।

খালেদা জিয়া বলেন, মিয়ানমার সরকারকে বলব- মানবতার স্বার্থে রোহিঙ্গাদের দেশে ফিরিয়ে নিন। নাগরিকত্ব দিয়ে তাদের ফিরিয়ে নিতে হবে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ত্রাণ কমিটির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, ড. মঈন খান, বরকত উল্লাহ বুলু, আবদুল্লাহ আল নোমান, আমীর খসরু মাহমুদ, গোলাম আকবর খন্দকার, শিমুল বিশ্বাস, লুৎফুর রহমান কাজল, জেলা বিএনপির সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী, উখিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি সরওয়ার জাহান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক সোলতান মাহমুদ চৌধুরীসহ দলের সিনিয়র নেতারা রয়েছেন।

এর আগে বেলা ১১টা ২০মিনিটে খালেদা জিয়া কক্সবাজার সার্কিট হাউস থেকে উখিয়ার উদ্দেশ রওনা হন। এ সময় কক্সবাজার শহর থেকে শুরু করে উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পর্যন্ত প্রায় ৬০ কিলোমিটার সড়কের উভয় পাশে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী ব্যানার প্ল্যাকার্ড ও ফেস্টুন সহকারে দাঁড়িয়ে দলীয় প্রধানকে স্বাগত জানান। এ সময় সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে দেখতে সাধারণ মানুষও তাদের সঙ্গে লাইনে অংশ নেন।

বাঘঘোনায় রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন শেষে খালেদা জিয়া হাকিমপাড়া ও বালুখালী রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করেন। সবশেষে বালুখালী পানবাজারে স্থাপিত ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) মেডিকেল ক্যাম্পে ৫ হাজার রোহিঙ্গা শিশু ও প্রসূতি মায়ের জন্য চিকিৎসা সামগ্রী চিকিৎসকদের কাছে হস্তান্তর করেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

এদিকে খালেদা জিয়া রোহিঙ্গা শিবিরে পৌঁছানোর আগেই সকালে ১০ হাজার রোহিঙ্গা পরিবারের জন্য আনা ৪৫ ট্রাক ত্রাণসামগ্রী সেনাবাহিনীর ক্যাম্পে হস্তান্তর করেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও নজরুল ইসলাম খান।

হস্তান্তর করা ত্রাণের হিসাব মতে, প্রতি পরিবার পাবে ১০ কেজি চাল, কয়েক কেজি করে ডাল ও প্রয়োজনীয় কাপড় রয়েছে। ৫ হাজার শিশুকে দুধসহ শিশু খাদ্য ও ৫ হাজার প্রসূতি মাকে গর্ভকালীন প্রয়োজনীয় খাদ্য সরবরাহ করা হবে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত