শিরোনাম

  ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জন্য মাতৃভাষায় পুস্তক প্রকাশনার বিধান রেখে খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা   সরকারী চাকরিতে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য কোটা না হলেও সমস্যা হবে না   রুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু   দুই আদিবাসী কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি   দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি ও ভারী বর্ষণ হতে পারে   আদিবাসী মানবাধিকার সুরক্ষাকর্মীদের সম্মেলন ২০১৮ উদযাপন   ব্লগার বাচ্চু হত্যার সঙ্গে ‘জড়িত’ ২ জঙ্গি নিহত   জুমের বাম্পার ফলনে রাঙ্গামাটির চাষিদের মুখে হাসি   সরকারি চাকরিতে আদিবাসী কোটা বহাল দাবি জানাল আদিবাসীরা   আয়ারল্যান্ড প্রবাসী বাংলাদেশের এক মন্ত্রী দ্বারা হেনস্ত হওয়াতে হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নিন্দা   শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পেয়েছে   মিয়ানমারে রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত   শহীদ আলফ্রেড সরেন হত্যার ১৮ বছর: হত্যাকারীদের দ্রুত বিচারের দাবি জাতীয় আদিবাসী পরিষদের   ভারতের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে বাংলাদেশের মেয়েরা   সরকারী চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা ছাড়া সব কোটা বাতিল হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী   জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান মারা গেছেন   ঈদের ছুটি কাটানো হলোনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার নিরীহ ধীরাজ চাকমার   খাগড়াছড়িতে পৃথক ঘটনার জন্য জেএসএস(সংস্কারবাদী) ও নব্য মুখোশ বাহিনীকে দায়ী করেছে : ইউপিডিএফ   নানিয়ারচর থেকে খাগড়াছড়ি   খাগড়াছড়িতে ৬ জনকে গুলি করে হত্যা !
প্রচ্ছদ / জাতীয় / আগামীকাল ৯ আগস্ট আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

আগামীকাল ৯ আগস্ট আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

প্রকাশিত: ২০১৮-০৮-০৮ ১৭:৫২:৪৮

আদিবাসী দিবস উদযাপনের ফাইল ছবি।

ঢাকা >>

আগামীকাল ৯ আগস্ট ২০১৮ বিশ্বব্যাপী জাতিসংঘ ঘোষিত আদিবাসী দিবস উদযাপিত হবে। বিশ্বের ৯০টি দেশের প্রায় ৪০ কোটির অধিক আদিবাসীর মতো বাংলাদেশে বসবাসকারী ৩০ লাখেরও বেশি আদিবাসী গোষ্ঠীর জনগণ এবারও জাতিসংঘ ঘোষিত ‘আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস’ উদযাপন করবে।

জাতিসংঘ ঘোষিত ২০১৬ সালের আদিবাসী দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‘আদিবাসীদের শিক্ষার অধিকার’। ২০১৭ সালে প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‘আদিবাসীদের শিক্ষা, ভূমি ও জীবনের অধিকার’।

তবে এবার ২০১৮ সালে প্রতিপাদ্য বিষয় হবে 'ইন্ডিজেনাস পিপলস মাইগ্রেশন এন্ড মুভমেন্ট' অর্থাৎ "আদিবাসী জনগণের দেশান্তর এবং প্রতিরোধের সংগ্রাম"

আগামীকাল ৯ আগস্ট বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের উদ্যোগে রাজধানী ঢাকায় জাতীয় পর্যায়ে দিবসটি উদযাপন করা হবে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দিবসটির শুভ উদ্বোধন করবেন মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন আদিবাসী ফোরামের সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় (সন্তু)লারমা।

বিশ্বের ৯০টি দেশের প্রায় ৪০ কোটির অধিক আদিবাসী জনগণের মতো বাংলাদেশে বসবাসকারী ৩০ লক্ষাধিক আদিবাসী জনগণ এবারও আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস জাতীয়ভাবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এবারের আদিবাসী দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় “Indigenous peoples’ migration and movement”. এই মূলসুরের সাথে সঙ্গতি রেখে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম এ বছরের প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারণ করেছে, “আদিবাসী জনগণের দেশান্তর এবং প্রতিরোধের সংগ্রাম” আজ থেকে ১১ বছর আগে ২০০৭ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে আদিবাসী অধিকার বিষয়ক ঘোষণাপত্র গৃহিত হয়েছিল।

এই দিনটি উদযাপন করতে বিশ্বের ৯০টি দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও বিভিন্ন জায়গায় উদযাপন করা হবে। আগামী ৯ আগস্ট বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ সদর দপ্তরে আন্তর্জাতিকভাবে উদযাপন হবে।

এর আগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৯ সালে আদিবাসী দিবসে বাণী দিয়েছিলেন। সেই বাণীতে তিনি বলেছিলেন, জাতিসংঘ ঘোষিত আদিবাসী অধিকার ঘোষণাপত্র বাস্তবায়ন করা হবে। কিন্তু পরবর্তীতে তাঁর সরকার তাঁর এই বাণী বা ঘোষণার বাস্তবায়ন না করে আদিবাসীদের “ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী”বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। আদিবাসীদের আশাছিল বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার সংখ্যালঘুদের কথা চিন্তা করে এ বাস্তবায়ন করবে। কিন্তু সে বাস্তবায়ন তো দূরের কথা আদিবাসী জনগোষ্ঠি আজ দেশান্তরের পথে।

এদিকে,সম্প্রতি সংবাদ সম্মেলনে আদিবাসী ফেরামের সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা ৮ দফা দাবি উত্থাপন করে বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন,দাবিগুলো হলো-

১. আদিবাসী জাতিসমূহের সাংবিধানিক স্বীকৃতিসহ আদিবাসীদের উপর সকল প্রকারনিপীড়ন ও নির্যাতন বন্ধ করার লক্ষ্যে একটি আদিবাসী অধিকার সুরক্ষা আইনপ্রণয়ন করা;

২.মানবাধিকার লংঘন বন্ধ করে আদিবাসীদের জোরপূর্বক দেশান্তরকরণ প্রক্রিয়া বন্ধ করার পদক্ষেপ গ্রহণ করা;

৩.আদিবাসীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করা এবং জাতীয় বাজেটে আদিবাসীদের জন্য বিশেষ বরাদ্দ রাখা;

৪.পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি অবিলম্বে যথাযথ বাস্তবায়ন করা এবং এ লক্ষ্যেসময়সূচি-ভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা বা রোডম্যাপ ঘোষণা করা। ভূমি কমিশন আইনঅবিলম্বে কার্যকর করা;

৫.জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ২০০৭ সালে গৃহীতআদিবাসী অধিকার বিষয়ক ঘোষণাপত্র অনুসমর্থন ও বাস্তবায়ন করা। আইএলও কনভেনশন১০৭ বাস্তবায়ন ও ১৬৯ নং কনভেনশন অনুস্বাক্ষর করা;

৬.সমতল অঞ্চলেরআদিবাসীদের ভূমি সমস্যা সমাধানের জন্য ভূমি কমিশন গঠন করা। মধুপুর গড়ে গারোও কোচদের ভূমিতে ঘোষিত রিজার্ভ ফরেস্ট বাতিল করা;

৭.মৌলভীবাজার জেলার ঝিমাই ও নাহার খাসিয়া পুঞ্জির খাসিয়াদের ভূমি অধিকার নিশ্চিত করা এবং চা বাগানের লীজ বাতিল করা;

৮.আদিবাসী নারীদের নিরাপত্তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা এবং তাদের ওপর এপর্যন্ত যে সমস্ত মানবাধিকার লঙ্ঘণের ঘটনা (ধর্ষণ, গণধর্ষণ,হত্যা,অপহরণ,বৈষম্য-নির্যাতন ইত্যাদি) ঘটেছে সেসব ঘটনার পূর্ণ তদন্ত করে দোষীদেরদৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা।

আপনার মন্তব্য

এ বিভাগের আরো খবর



আলোচিত