শিরোনাম

  আগামী ২৪ ডিসেম্বর জেএসসি ও প্রাথমিক সমাপনীর ফল প্রকাশ   নির্বাচনকালীন ইউএনও-ডিসির স্বাক্ষরে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা : শিক্ষা মন্ত্রণালয়   খালেদার মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের বিভক্ত আদেশ   'তিন পার্বত্য জেলায় ৩৮ টি ভোটকেন্দ্রে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে'   সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ন নির্বাচন নিশ্চিত করার আহ্বান ইউরোপীয় দেশগুলোর   তরুণ ও নারী ভোটাররাই আওয়ামী লীগের বিজয়ের প্রধান হাতিয়ারঃ কাদের   গত ৫ বছরে জেএসএস এমপি উন্নয়ন করতে পারেনি, যা করেছে আওয়ামীলীগ করেছে : দিপংকর তালুকদার   এখন থেকে সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার আগে মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক   'বান্দরবানে বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই'   'নির্বাচনী প্রচারণায় রঙিন পোস্টার বা ব্যানার ব্যবহার করা যাবে না'   ৫৮টি নিউজ পোর্টাল খুলে দিয়েছে বিটিআরসি   বুধবার থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী   বিএনপি ক্ষমতায় এলে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করার চেষ্ঠা করবো: মনি স্বপন দেওয়ান   তিন পাহাড়ে নৌকা নিয়ে মাঠে দৌড়াবেন যারা   আগামীকাল খালেদা জিয়ার অগ্নিপরীক্ষা   হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, সফল হিরো আলমের চ্যালেঞ্জ   খাগড়াছড়িতে বনের রাজা পেয়েছেন ইউপিডিএফের প্রার্থী নতুন কুমার চাকমা   বিশ্বের প্রথম উঁচু ভাস্কর্য 'চীনের স্প্রিং টেম্পল বুদ্ধ'   আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস || আদিবাসীদের মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসার অাহ্বান   বনের রাজা সিংহকে নিয়ে রাঙ্গামাটিতে দৌড়াবেন ঊষাতন তালুকদার
প্রচ্ছদ / জাতীয় / পাহাড়ে জুম চাষ করার ফলে মাটি নরম হয়ে পাহাড় ধস হচ্ছে : পরিবেশমন্ত্রী

পাহাড়ে জুম চাষ করার ফলে মাটি নরম হয়ে পাহাড় ধস হচ্ছে : পরিবেশমন্ত্রী

প্রকাশিত: ২০১৮-০৭-২৫ ১১:৩৯:৫০

   আপডেট: ২০১৮-০৭-২৫ ১২:৪৫:৫০

অনলাইন ডেস্ক

পরিবেশমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, কেউ বন সাফ করে জুম চাষ করছে, কেউ বন কেটে উজাড় করে ফেলছে, বনখেকোরা মাটি ও গাছ কাটছে এতে মাটি নরম হয়ে পাহাড় ধসে পড়েছে। তিনি বলেন, পাহাড়ের ওপরে মাটি আঁকড়ে রাখার গাছের শিকড় না থাকায় মাটি নরম হয়ে তা ধসে পড়ছে।

বৃষ্টির মৌসুমে পাহাড় ধস হবেই, তবে আমাদের সাবধান থাকতে হবে। পাহাড় ধস রোধে গাছ লাগানো এবং বনের জমি ইজারা না দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, ‘জেলা প্রশাসকদের সঙ্গে বন ও নদী দখল এবং দূষণ রোধের বিভিন্ন উপায় নিয়ে আলোচনা করেছি। কক্সবাজারের রোহিঙ্গারা ৫ হাজার একর জমির গাছগাছালি উজাড় করে ফেলেছে। যেহেতু মানবিক কারণে তাদের আশ্রয় দেওয়া হয়েছে সেহেতু এই ক্ষতি আমাদের মানতেই হবে।’

পরিবেশমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বেশিরভাগ গাছ রোহিঙ্গারা ব্যবহার করেছে জ্বালানির কাজে। রোহিঙ্গাদের জ্বালানির কাজে ব্যবহারের জন্য আমরা গ্যাস সিলিন্ডার দেওয়ার কথা ভেবেছিলাম, কিন্তু দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে  এই চিন্তা থেকে আপাতত তা বাদ দিয়ে কয়লা দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে।’

আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, ‘জমি, পাহাড় ও বন দখল একটি নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। একদিকে তাদের উচ্ছেদ করা হচ্ছে, অপরদিক থেকে আবার তারা দখল করছে। এজন্য আলাদা একটি চক্রই রয়েছে।  আশা করছি এভাবে উচ্ছেদ করতে করতে একসময় সচেতনতা বাড়বে এবং এসব দখল কালচার বন্ধ হবে।’

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ আরো বলেছেন, পাহাড় কাটা, বনের জমি লিজ নেয়া, বনভূমির অবৈধ দখল, নদী দখল, নদী দূষণ নিয়ে ডিসিদের সঙ্গে আলোচনা করছি। তারা কীভাবে এগুলোর সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারে সেটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

ডিসিরা কোনো সমস্যার কথা বলেছেন কিনা? - জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বলেছেন, যেমন কক্সবাজারের কথা বলেছেন, যেখানে বনের যথেষ্ট ক্ষতি হয়েছে। বনের প্রায় ৫ হাজার একরের মতো জমির ক্ষতি হয়েছে। সেটা আবার পুনরায় বনায়ন করার ব্যাপারে আমরা কী পদক্ষেপ নিচ্ছি, সেগুলো নিয়ে কথা হয়েছে।’

বুধবার (২৪ জুলাই) সচিবালয়ের মন্ত্রিসভার সভাকক্ষে জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনের প্রথম অধিবেশনে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।  এতে সভাপতিত্ব করেছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব শফিউল আলম।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত