শিরোনাম

  ঢাবি শিক্ষার্থী প্রকট চাকমাসহ ১৩ শিক্ষার্থী পেলেন জগন্নাথ হল স্বর্ণপদক   চট্টগ্রামসহ অনেক জায়গায় ভারী বর্ষণ হতে পারে   ভিয়েতনামে বন্যায় ২০ জনের মৃত্যু , ১ লাখ ১০ হাজার হেক্টর জমির ফসল বিনষ্ট   দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা   ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রী সতর্ক করেছেন: কাদের   থানকুনি পাতার জাদুকরি উপকারিতা   চট্টগ্রাম কর্ণফুলীতে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ, গ্রেফতার ৩   পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নে সেনাবাহিনীর ভূমিকা অপরিসীম : প্রধানমন্ত্রী   চিকিৎসা খাতে নতুন আবিষ্কার রঙিন ও থ্রি-ডি এক্স-রে   গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেঁদেছেন প্রধানমন্ত্রী   না ফেরার দেশে রাজীব মীর   নানিয়াচর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রীতিময় চাকমাকে অপহরণ   ছেলেদের চেয়ে এবারও এগিয়ে মেয়েরা   চট্টগ্রাম বোর্ডের পাশের হার ৬২.৭৩ %   যারা ফেল করেছে তাদের বকাঝকা করবেন না : প্রধানমন্ত্রী   এইচএসসি তে পাসের ধস নেমেছে এবার   এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার এবার ৬৬.৬৪   হাসপাতাল ছাড়ার পর এবার থাই কিশোররা সবাই শ্রামণ হয়ে প্রবজ্যা গ্রহণ করবে   থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া কিশোররা হাসপাতাল ছেড়েছে   ৮ দল নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের আত্মপ্রকাশ
প্রচ্ছদ / জাতীয় / আদিবাসী নিয়ে দুই মেজরকে কড়া যুক্তি দেখালেন ব্যারিষ্টার দেবাশীয় রায় ও ড. মেসবাহ কামাল

আদিবাসী নিয়ে দুই মেজরকে কড়া যুক্তি দেখালেন ব্যারিষ্টার দেবাশীয় রায় ও ড. মেসবাহ কামাল

প্রকাশিত: ২০১৭-১২-০৫ ১৩:১৮:১৪

   আপডেট: ২০১৭-১২-০৫ ১৫:১৬:১৫

অনলাইন ডেস্ক

মেজর(অবঃ) ব্যারিষ্টার এম সারোয়ার হোসেনের এক প্রশ্নের জবাবে চাকমা চীফ সার্কেল ব্যারিষ্টার দেবাশীয় রায় বলেছেন, ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফন্ট(ইউপিডিএফ) এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) বলেন নাই যে পার্বত্য চট্টগ্রামে ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি হোক তথা অস্থায়ী সেনাক্যাম্প প্রত্যাহার না হোক,পুনর্বাসন করুন না।

তিনি বলেন ইউপিডিএফ'র চাহিদা অনুযায়ী বরং জেএস এস কম দাবি চেয়েছে। সেই হিসেবে চুক্তি বাস্তবায়নে তারা ভিন্ন মত পোষণ করছে বলে চুক্তি বাস্তবায়নে কোন কারণ হতে পারেনা যা সেটা অজুহাত হতে পারে।

তিনি আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সরকার প্রত্যকটি মেয়র বানিয়েছে একটাও পাহাড়ি নেই। ইউনিয়ন ও উপজেলা পরিষদে ক্রমবর্ধমানভাবে বাঙালি নির্বাচিত হচ্ছে। এই হারে যদি জনসখ্যা বৃদ্ধি পায় আর অস্থায়ী বাঙালি গুলো যদি চলে না আসে তাহলে আগামী ২০-৩০ বছরে পার্বত্য চট্টগ্রাম করুণ অবস্থা হিসেবে দাঁড়াবে। যা বাঙালি বেড়ে গেলে পরবর্তীতে আমাদেরকে ও বাঙালি হতে বাধ্য করবে।

চুক্তি মোতাবেক যুক্তি দিয়ে তিনি বলেন, যদি এই আসনগুলো পাহাড়িদের না থাকে তাহলে জনসংখ্যা নব্বই শতাংশ বাঙালি হয়ে গেলে তাহলে কি আমাদের চলে যেতে হবে? কোথায় যাব? ভারতে যাব না বার্মায় যাব  বাংলাদেশে তো জন্মগ্রহণ করেছি। আমাদের মাটি বাংলাদেশেরই মধ্যে ।

এছাড়া বাংলাদশের আদিবাসী মানুষদের নিয়ে দেবাশীয় রায় বলেন, বাংলাদেশে এখনো আদিবাসী রয়েছে। মেজর(অবঃ) ব্যারিষ্টার এম সারোয়ার হোসেনের মতে যারা দীর্ঘ সময়ে এক জায়গায় বসবাস করে আসছে তাদেরকে বুজায়। কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রামে যেসব মানুষ রয়েছে তারা এদেশে দীর্ঘকাল বসবাস করেনি। 

বিষয়টিকে যুক্তি দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. মেসবাহ কামাল ও ব্যারিষ্টার দেবাশীয় রায় বাংলাদেশে এখনো আদিবাসী রয়েছে বলে মন্তব্য করেন। মেসবাহ কামাল বলেন বিশ্বে এখনো অনেক রাষ্ট্রে আদিবাসীদের অধিকারের বিধান রয়েছে।

'পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২০ বছর' 'জনতন্ত্র গণতন্ত্র)' সম্প্রতি টকশোতে ড. রোবায়েত ফেরদৌস সঞ্চলনায় স্টুডিওতে উপস্থিত ছিলেন, ব্যারিষ্টার দেবাশীষ রায়, মেজর(অবঃ) ব্যারিষ্টার এম সারোয়ার হোসেন, মেজর(অবঃ) জিল্লুর রহমান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. মেসবাহ কামাল।

এদিকে, এ প্রসঙ্গে দেবাশীয় রায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লিখেন,

গত ২ ডিসেম্বরের NEWS 24 এর টকশোতে অবসরপ্রাপ্ত major সাহেবদের গলাবাজি একটি নতুন ধরনের ষড়যন্ত্র বলে মনে হচ্ছে।

অনানুষ্ঠানিকভাবে জেনেছি, TV channel-কে বাধ্য করা হয়েছে, দুই প্রাক্তন সেনা কর্মকর্তাকে অন্তর্ভুক্ত করতে (কে বা কারা করেছে, অংক করে নিন)।

এই ব্যক্তিরা পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি ১৯৯৭ এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম সহ বাংলাদশের আইন এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন সম্বন্ধে অজ্ঞ (তার মধ্যে একজন barrister).

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি ১৯৯৭ এর বাস্তবায়ন দুরে থাক। চুক্তির বিধান তারা চ্যালেঞ্জ করছেন। তার মানে, মাননীয় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৯৯৭-এর চুক্তির বিধানাবলি তাঁরা মানছেন না।

অর্থাৎ, বঙ্গবন্ধু-কন্যা মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের স্বার্থের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন! তাঁদের মতে।

তাঁদের উপসংহার হচ্ছে যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সরকার সংবিধান না জেনে ও না বুঝে ২ ডিসেম্বর ১৯৯৭-এ চুক্তি সম্পাদন করেছেন।

তাঁদের মতামতে প্রতিফলিত হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি ১৯৯৭-এর অন্যতম প্রধান প্রতিবন্ধকতা!

ভিডিও :

আপনার মন্তব্য

আলোচিত