শিরোনাম

  ভিয়েতনামে বন্যায় ২০ জনের মৃত্যু , ১ লাখ ১০ হাজার হেক্টর জমির ফসল বিনষ্ট   দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা   ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রী সতর্ক করেছেন: কাদের   থানকুনি পাতার জাদুকরি উপকারিতা   চট্টগ্রাম কর্ণফুলীতে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ, গ্রেফতার ৩   পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নে সেনাবাহিনীর ভূমিকা অপরিসীম : প্রধানমন্ত্রী   চিকিৎসা খাতে নতুন আবিষ্কার রঙিন ও থ্রি-ডি এক্স-রে   গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেঁদেছেন প্রধানমন্ত্রী   না ফেরার দেশে রাজীব মীর   নানিয়াচর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রীতিময় চাকমাকে অপহরণ   ছেলেদের চেয়ে এবারও এগিয়ে মেয়েরা   চট্টগ্রাম বোর্ডের পাশের হার ৬২.৭৩ %   যারা ফেল করেছে তাদের বকাঝকা করবেন না : প্রধানমন্ত্রী   এইচএসসি তে পাসের ধস নেমেছে এবার   এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার এবার ৬৬.৬৪   হাসপাতাল ছাড়ার পর এবার থাই কিশোররা সবাই শ্রামণ হয়ে প্রবজ্যা গ্রহণ করবে   থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া কিশোররা হাসপাতাল ছেড়েছে   ৮ দল নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের আত্মপ্রকাশ   আগামীকাল এইচএসসির ফল প্রকাশ হবে   নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম শতবার্ষিকী আজ
প্রচ্ছদ / জাতীয় / পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় পার্বত্যাঞ্চল একটি মহাশ্মশানে পরিনত হয়েছে : সন্তু লারমা

পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় পার্বত্যাঞ্চল একটি মহাশ্মশানে পরিনত হয়েছে : সন্তু লারমা

প্রকাশিত: ২০১৭-১১-১০ ১৭:৫৮:৩৬

   আপডেট: ২০১৭-১১-১২ ১১:৩২:৫৩

ডেইলি সিএইচটি রিপোর্ট

জনসংহতি সমিতির সভাপতি ও পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা বলেছেন, পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় পার্বত্যাঞ্চল একটি মহাশ্মশানে পরিনত হয়েছে। তিনি বলেন ১০ই নভেম্বর '৮৩'তে এমএন লারমাসহ অনেককে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। এই হত্যাকান্ডের পেছনে  জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র জড়িত ছিল।

জুম্ম জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার চীরতরে ধ্বংস করার হীনউদ্দেশ্যে বিভেদপন্থী চার কুচক্রী দ্বারা সেই হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছিল। মহান নেতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে জুম্ম জনগনের আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার আন্দোলন নস্যাৎ করতে চেয়েছিল সেই কুচক্রী মহল। সেই বিভেদপন্থী,সুবিধাবাদী, প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী এখনো সক্রিয় রয়েছে

তারা পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়না আন্দোলনকে নস্যাৎ করার জন্য তারা বর্তমানে উঠে পড়ে রয়েছে। সেজন্য আজকের স্মরণশোভার বক্তাদের বক্তব্য সেসব সুবিধাবাধী ও প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সতর্ক হওয়ার এবং তাদের প্রতিরোধ করার হওয়ার কথা উঠে এসেছে। জুম্ম সমাজে যারা সুবিধাবাধী, প্রতিক্রিয়াশীল ও সরকার শাসকগোষ্ঠির লেজুর হয়ে নিজেদের স্বার্থ পরিপূরনে সবসময় যারা সচেষ্ট রয়েছে তাদের সম্পর্কে আজকে স্মরণশোভা আমাদেরকে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে যে তাদের ব্যাপারে আমাদের আরো সচেতন হতে হবে,আরও সংগ্রামী হতে হবে।

পার্বত্য চুক্তি বিরোধী ও জুম্মস্বার্থ পরিপন্থী সকল কার্যক্রম প্রতিরোধ করুন ,পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নে অধিকতর আন্দোলন সংগঠিত করুন এই স্লোগানকে সামনে রেখে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতির সমিতির রাঙ্গামাটি জেলা কমিটির উদ্যোগে জুম্ম জনগণের জাতীয় জাগরণের অগ্রদূত ,সাবেক গণ পরিষদ ও জাতীয় সংসদ সদস্য বিপ্লবী মহান নেতা মানবেন্দ্র নারায়ন লারমার ৩৪ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আজকে যারা এই লড়াকু সংগ্রামকে গলাটিপে হত্যা করতে চাচ্ছেন এবং আমাদের জুম্ম সমাজের সুবিধাবাদী, প্রতিক্রিয়াশীল যারা রয়েছে তাদের প্রতিরোধ ও প্রতিবিধান করা সবচেয়ে জরুরী হয়ে পড়েছে বলে আমি মনে করি। আজকে বাংলাদেশ সরকারদ পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যকে সামনে রেখে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি সম্পাদন করেছে কিন্তু সেই চুক্তি বাস্তবায়ন হতে পারছেনা এবং সরকার বাস্তবায়ন করছেনা।এখানে ষোল-আনা সরকারের অসৎ উদ্দেশ্যে রয়েছে।

বাংলাদেশ জন্মলাভ হয়েছে ৪৬ বছর হয়েছে। ৪৬ বছর ধরে আমরা পার্বত্য অঞ্চলের জুম্ম জনগণ তথা এই এলাকার পাহাড়ি-বাঙালি অধিবাসীরা আমরা সেনাশাসনে রয়েছি। সেনাশাসন,গোয়েন্দা বাহিনী, এখানকার আমলা বাহিনী ,ক্ষমতাসীন দলের সেটেলারদের মিলিতভাবে যে দমন-পীড়ন-নির্যাতন ,শোষণ-বঞ্চনা আজকে সীমাহীন পর্যায়ে চলে গেছে। আজকে প্রতিদিন, প্রতি মুহর্তে , আমাদের  নিরাপত্তাহীন, অনিশ্চিত জীবন নিয়ে এগিয়ে যেতে হচ্ছে। এই জীবন আমরা মেনে নিতে চাইনা এবং আমরা মেনে নিতে প্রস্তুত নই। সরকার চুক্তি বাস্তবায়ন চায়না। তারা পার্বত্য চট্টগ্রামকে মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলে পরিণত করতে চায়। সেজন্য আজ জুম্ম জনগণের জীবণ এক নিরাপত্তাহীন শাসরুদ্ধকর অবস্থায় বিরাজ করছে।

পার্বত্য চুক্তির পর ২০ বছর অতিক্রান্ত হলেও চুক্তি বাস্তবায়িত না হওয়ায় পার্বত্য চট্টগ্রাম আজ একটি মহাশ্মশানে পরিনত হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত