শিরোনাম

  ভিয়েতনামে বন্যায় ২০ জনের মৃত্যু , ১ লাখ ১০ হাজার হেক্টর জমির ফসল বিনষ্ট   দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা   ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রী সতর্ক করেছেন: কাদের   থানকুনি পাতার জাদুকরি উপকারিতা   চট্টগ্রাম কর্ণফুলীতে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ, গ্রেফতার ৩   পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নে সেনাবাহিনীর ভূমিকা অপরিসীম : প্রধানমন্ত্রী   চিকিৎসা খাতে নতুন আবিষ্কার রঙিন ও থ্রি-ডি এক্স-রে   গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেঁদেছেন প্রধানমন্ত্রী   না ফেরার দেশে রাজীব মীর   নানিয়াচর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রীতিময় চাকমাকে অপহরণ   ছেলেদের চেয়ে এবারও এগিয়ে মেয়েরা   চট্টগ্রাম বোর্ডের পাশের হার ৬২.৭৩ %   যারা ফেল করেছে তাদের বকাঝকা করবেন না : প্রধানমন্ত্রী   এইচএসসি তে পাসের ধস নেমেছে এবার   এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার এবার ৬৬.৬৪   হাসপাতাল ছাড়ার পর এবার থাই কিশোররা সবাই শ্রামণ হয়ে প্রবজ্যা গ্রহণ করবে   থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া কিশোররা হাসপাতাল ছেড়েছে   ৮ দল নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের আত্মপ্রকাশ   আগামীকাল এইচএসসির ফল প্রকাশ হবে   নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম শতবার্ষিকী আজ
প্রচ্ছদ / জাতীয় / পাহাড়িদের সামাজিক, সাংস্কৃতিক নিরাপত্তার কথা কেউ ভাবছে না : সঞ্জীব দ্রং

পাহাড়িদের সামাজিক, সাংস্কৃতিক নিরাপত্তার কথা কেউ ভাবছে না : সঞ্জীব দ্রং

রোহিঙ্গাদের চাপে পাহাড়ে ‘পাহাড়ি' বিলীন হওয়ার আশংকা!

প্রকাশিত: ২০১৭-১০-২৫ ১৯:৩৫:১০

ফাইল ছবি/বাংলা ট্রিবিউন

ডয়চে ভেলে

আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে অনুযোগের সুরেই জার্মান সংবাদ মাধ্যম ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‘পাহাড়িদের সামাজিক, সাংস্কৃতিক নিরাপত্তার কথা কেউ ভাবছে না৷ পাহাড়িরা তো অবর্ণণীয় অবস্থায় পড়তে যাচ্ছে৷

ক্রমশ তাদের অস্তিত্ব কঠিন অনিশ্চয়তায় পৌঁছাবে৷ এমনকি পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে পাহাড়িরা একেবারে  বিলীন হয়ে যাওয়ার আশংকাও তারা করছেন৷একজন পাহাড়ি হিসেবে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন৷''

তিনি আরো বলেন,  ‘‘নাইক্ষ্যংছড়িতে এরইমধ্যে এক রোহিঙ্গা  জনপ্রতিনিধিও নির্বাচিত হয়েছেন৷ তাঁর কাছে তো এমনিতেই আমাদের কেউ কোনো সমস্যার সমাধান পায় না৷

আর এই দশ লাখ যদি যোগ হয়, তাহলে যে কী হবে কে জানে৷ তাছাড়া পাহাড়ের অন্যান্য জায়গাতেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থাকায় দিন দিন আমাদের বলার জায়গা কমছে৷ এসব কেউ দেখে না৷''

তিনি হতাশা জানিয়ে বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশে কোনো জায়গা নেই, ঘুরেফিরে পাহাড়েই জায়গা দেয়া হয় সবাইকে৷ বিভিন্ন সময় পাহাড়ে আদিবাসী পুনর্বাসন করা হলেও তারা আসলে সেখানে সংখ্যালঘু৷ তাদের বেশিরভাগই বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী৷ মিয়ানমারে বৌদ্ধরা মুসলমান হত্যা করছে বলে এ দেশের বৌদ্ধদের অনেকেই নানান হুমকিতে পড়ছেন৷ অথচ রোহিঙ্গাদের সাহায্য করতে নিজেদের ফাণ্ড থেকে অনেকেই অর্থ সহায়তাও দিচ্ছেন৷''

উল্লেখ্য,বান্দরবান, রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি– এই তিন জেলা নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম৷ সর্বশেষ ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী, পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলায় আদিবাসী আগের তুলনায় বেড়েছে ২ লাখ ৫২ হাজার ৫৬৪ জন৷ ২০০১ সালে তিন পার্বত্য জেলায় আদিবাসী ছিল ৫ লাখ ৯২ হাজার ৯৭৭ জন৷ ২০১১ সালে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ লাখ ৪৫ হাজার ৫৪১ জনে৷ তবে এই বৃদ্ধির কারণ, অন্যান্য এলাকা থেকে আদিবাসীদের এ এলাকায় নিয়ে আসা৷ কিন্তু সাম্প্রতিক এই উদ্যোগ বাদ দিলে বিভিন্ন সময়ে নানা কারণে পাহাড়ে আদিবাসীর সংখ্যা ক্রমাগতই কমেছে৷

বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রামে আছে ১১টি জনগোষ্ঠীর মানুষ৷ তাদের মধ্যে অহমিয়া, খিয়াং, খুমী, গুর্খা, চাকমা, তঞ্চঙ্গ্যা, রাখাইন, ত্রিপুরাসহ আরও বেশ কিছু জনগোষ্ঠীর বসবাস আছে এসব এলাকায়৷ সরকারি হিসেবে বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ১ দশমিক ২ শতাংশ মানুষ ২৭টি আদিবাসী গোষ্ঠীর৷

স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশে অন্ততপক্ষে দশটি নৃ-গোষ্ঠী হারিয়ে গেছে, বিলুপ্ত হয়েছে তাদের ভাষা, সংস্কৃতি ও ইতিহাস৷ ১৯৪৭ সালে যে পার্বত্য চট্টগ্রামে আদিবাসী জনসংখ্যা ছিল শতকরা ৯৭ ভাগ, ১৯৬১ সালে তা কমে ৮৫ ভাগে দাঁড়ায়৷ ১৯৯৭-এ শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের সময় পার্বত্য চট্টগ্রামে আদিবাসী ছিল শতকরা ৫২ ভাগ৷

১৯৯৭ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামের সংক্ষুব্ধ আদিবাসীদের সঙ্গে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর করার পর বিদ্রোহের অবসান হয় এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়৷ তবে এরপরও এ অঞ্চলের পাহাড়ি সম্প্রদায়ের উপর হামলা, নির্যাতন ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা অনেকবার ঘটেছে৷

অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত তাঁর এক গবেষণায় বলেছেন, ২৭ বছর আগে পার্বত্য চট্টগ্রামে আদিবাসী মানুষ ছিল ৭৫ শতাংশ৷ আর এখন তা ৪৭ শতাংশ৷

অর্থাৎ, পার্বত্য শান্তি চুক্তির পরও শতকরা ১০ ভাগ কমেছে৷ অন্যদিকে ঐ অঞ্চলে বাঙালিদের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে৷

গত আগস্ট থেকে প্রায় ছয় লাখের মতো রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে৷ এর আগেও বিভিন্ন সময়ে অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে পার্বত্য এলাকায় ঢুকেছে রোহিঙ্গারা৷ আগে আসা রোহিঙ্গাদের কেউ কেউ এরইমধ্যে স্থানীয়দের সহায়তায়, প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে ভোটার হয়েছে৷

বাংলাদেশে অবস্থানরত প্রায় দশ লাখ রোহিঙ্গারঅধিকাংশই থাকছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বা তার কাছাকাছি এলাকায়৷ এর ফলে এরইমধ্যে পাহাড়িদের সামাজিক, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড ও নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়েছে বলেও জানিয়েছেন পাহাড়িরা৷

দেশের মাটিতে পাহাড়ি জনপদের সংকট নতুন নয়৷ গত কয়েক দশকে নিরবচ্ছিন্ন শান্তির মুখ তাঁরা কখনোই দেখেননি৷ ১৯৯৭ সালে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরিত হলেও তা এখনো পুরোপুরি বাস্তবায়িত হয়নি৷এরই মাঝে মিয়ানমার থেকে লাখে লাখে রোহিঙ্গাদের আগমনে জেগেছে নতুন শঙ্কা৷

আপনার মন্তব্য

আলোচিত