আজ বুধবার, | ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ইং

শিরোনাম

  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা শুক্রবার   চীনে বিশ্বের দীর্ঘতম ভাসমান রাস্তা   পাহাড়ে বিপর্যয়ের শঙ্কা:রোহিঙ্গা সংকট   ফ্রান্সস্থ লাকুরনভ ধাম্মাচাক্কা বিহারে কঠিন চীবর দান সম্পন্ন   চাকমাদের খাঁ, রায়, খীসা, দেওয়ান ও তালুকদার উপাদি   অষ্ট্রেলিয়া পৌঁছেছেন উপসংঘরাজ ভদন্ত ধর্মপ্রিয় মহাথের   ছাত্র জীবনে যে সময়টা সৎব্যবহার করবে, সে জীবনে ভালো কিছু করতে পারবেঃউষাতন তালুকদার   গৌতম বুদ্ধের কিছু গুরুত্বপূর্ণ বাণী   পাহাড়ি এলাকায় বন্যহাতির আক্রমণে চার রোহিঙ্গা নিহত   রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরে আনার আহ্বান কফি আনানের   রাঙ্গামাটিতে ঘুষ ছাড়া পাসপোর্টের পুলিশ ভেরিফিকেশন হয়না!   বাংলাদেশী বৌদ্ধ সমিতি কুয়েতের ২০১৭-২০১৯ নব গঠিত কমিটির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন   খাগড়াছড়িতে মাতাল স্ত্রীর হাতে স্বামী খুন-স্ত্রী পলাতক   ঢাবি ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন   আজ ভুটান রাজ পরিবারের বিবাহ বার্ষিকী   খাগড়াছড়িতে আপন শ্যালিকাকে গণধর্ষন-দুলাভাইসহ তিন জন সেটেলার গ্রেফতার   প্রধান বিচারপতির দায় নেবে নাঃ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ   \'আলোময় চাকমার\' একটি অসাধারণ জুম পাহাড়ের কবিতা   রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক নয়,তারা বাঙ্গালিঃ মিয়ানমার সেনাপ্রধান   কাল চট্টগ্রামে ফ্রি সিদ্ধ ডিম খাওয়ানো হবে

মুক্তিযুদ্ধ করেও ভূমিহীন যোগ্যশ্বর

প্রকাশিত: ২০১৭-০৪-২৩ ১৪:১৬:৫৬

নিউজ ডেস্ক

নিজের নামে এক টুকরো ভূমি নেই মুক্তিযোদ্ধা যোগ্যশ্বর জলদাসের। পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গায় ৩০ বছর ধরে ভাঙাচোরা একটি ঘরে অনেক কষ্টে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করছেন তিনি।

সরকার দরিদ্র মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ঘর তৈরি করে দিলেও নিজের নামে ভূমি না থাকায় সরকারি সেই ঘরও কপালে জুটছে না উপজেলার ওচমানপুর ইউনিয়নের এই মুক্তিযোদ্ধার।

যোগ্যশ্বর জলদাস বলেন, জীবন বাজি রেখে ৫ মাস যুদ্ধ করেছি। যুদ্ধ শেষে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর শুনি মুক্তিবার্তায় আমার নাম নেই। অনেকের কাছে ধরনা দিয়েও ৩৮ বছর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পাইনি। আমার কাছে মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর অধিনায়ক জেনারেল আতাউল গনি ওসমানী স্বাক্ষরিত স্বাধীনতা সংগ্রামের সনদপত্র থাকা সত্ত্বেও মুক্তিযুদ্ধ করেছি কি-না প্রমাণের জন্য চারবার ইন্টারভিউ দিতে হয়েছে।

সর্বশেষ ২০০৯ সালের শেষ দিকে মুক্তিযুদ্ধকালীন ১ নম্বর সেক্টরের সাব সেক্টর কমান্ডার বর্তমান গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনকে সব কিছু বলার পর তিনি আমাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ে ডিও লেটার দেন। ২০১০ সালের ৭ মার্চ মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় আমাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সাময়িক সনদপত্র দেয়।

বাঁশখালী মৌজায় আমাদের যেটুকু সম্পত্তি ছিল তাও নদীতে বিলীন হয়ে যায়। পরে ভাইবোন নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৬ শতক জায়গায় দখল স্বত্বে কিনে টিনশেডের একটি ঘর করি। সেখানেই চার ছেলে, চার মেয়ে নিয়ে জীবন পার করে দিলাম। এখন বিভিন্ন সমস্যার কারনে সেই জায়গায়ও বসবাস করতে পারছি না।

উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, সরকার তিন ক্যাটাগরিতে ঘর তৈরি করে দিচ্ছে। ভূমিহীন মুক্তিযোদ্ধা যোগ্যশ্বরের বিষয়ে তিনি কোনো তালিকা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, স্থানীয় প্রশাসন থেকে পাননি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত