শিরোনাম

  ২৪ ডিসেম্বর থেকে পার্বত্য এলাকাসহ মাঠপর্যায়ে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন করা হবে   গ্রাম আদালতের একটি সফল গল্প   টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগের পর চার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব বণ্টন   আগামী ২৪ ডিসেম্বর জেএসসি ও প্রাথমিক সমাপনীর ফল প্রকাশ   নির্বাচনকালীন ইউএনও-ডিসির স্বাক্ষরে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা : শিক্ষা মন্ত্রণালয়   খালেদার মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের বিভক্ত আদেশ   'তিন পার্বত্য জেলায় ৩৮ টি ভোটকেন্দ্রে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে'   সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ন নির্বাচন নিশ্চিত করার আহ্বান ইউরোপীয় দেশগুলোর   তরুণ ও নারী ভোটাররাই আওয়ামী লীগের বিজয়ের প্রধান হাতিয়ারঃ কাদের   গত ৫ বছরে জেএসএস এমপি উন্নয়ন করতে পারেনি, যা করেছে আওয়ামীলীগ করেছে : দিপংকর তালুকদার   এখন থেকে সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার আগে মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক   'বান্দরবানে বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই'   'নির্বাচনী প্রচারণায় রঙিন পোস্টার বা ব্যানার ব্যবহার করা যাবে না'   ৫৮টি নিউজ পোর্টাল খুলে দিয়েছে বিটিআরসি   বুধবার থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী   বিএনপি ক্ষমতায় এলে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করার চেষ্ঠা করবো: মনি স্বপন দেওয়ান   তিন পাহাড়ে নৌকা নিয়ে মাঠে দৌড়াবেন যারা   আগামীকাল খালেদা জিয়ার অগ্নিপরীক্ষা   হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, সফল হিরো আলমের চ্যালেঞ্জ   খাগড়াছড়িতে বনের রাজা পেয়েছেন ইউপিডিএফের প্রার্থী নতুন কুমার চাকমা
প্রচ্ছদ / মুক্তিযুদ্ধ / মুক্তিযোদ্ধার সনদ আছে, তবু তালিকায় নাম নেই নন্দ দুলাল সাহার

মুক্তিযোদ্ধার সনদ আছে, তবু তালিকায় নাম নেই নন্দ দুলাল সাহার

প্রকাশিত: ২০১৭-০২-০৭ ১৭:৪৬:৩৬

নিউজ ডেস্ক

১৯৭১ সালে বিষয়খালী, গাড়াগঞ্জের যুদ্ধে তাঁর ছিল সরাসরি অংশ গ্রহণ। দেশে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে ঝিনাইদহ কেসি কলেজে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো। তিনি সেখান থেকে ৭ দিনের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তারপর তিনি ভারতে যাওয়ার পথে সীমান্তে পাক হানাদার বাহিনীর কবলে পড়ে হাতে গুলিবিদ্ধ হন। যার কারণে ভারতের কল্যাণী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকায় প্রশিক্ষণ নিতে পারেন নি। ১৯৭১ সালে তাঁকে কয়েকবার রাজাকারেরা হত্যার জন্য চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে ঝিনাইদহের আরাপপুরে ৩ জন পাক সেনা ধরেন এবং পরে তাঁদের মধ্য থেকে একজনকে পাক সেনাকে হত্যা করেন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা।

মুক্তিযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে ঝিনাইদহের গন মিলিশিয়া ক্যাম্পে অস্ত্র জমা দেন। অস্ত্র জমা দেওয়ার পর বাংলাদেশ সরকার তাঁকে মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে সনদ প্রদান করেন। কিন্ত মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের সনদ থাকার পরও বর্তমান সরকারের তৈরি করা মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকায় তাঁর নাম নেই। সারাদেশে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা নতুন করে যাচাই-বাছাইয়ের জন্য আবেদনপত্র সংগ্রহ করতে গেলে তাঁকে বলা হয়- অনলাইন তালিকায় তাঁর নাম আসেনি, তাই তাঁকে আবেদনপত্র দেওয়া সম্ভব না।

এ প্রসঙ্গে নন্দ দুলাল সাহা জানান, আমি নিয়মনীতি মেনে অনলাইনে আবেদন করেছি। কেন তালিকায় নাম নেই, তা আমার জানা নেই।

বর্তমানে এই ভাষা সৈনিক ও মুক্তিযোদ্ধা ঝিনাইদহের বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত আছেন। তিনি ঝিনাইদহ থিয়েটারের উপদেষ্টা ও প্রবীণ হিতৈষী সংঘের সদস্য। তিনি একাধারে একজন ক্রীড়াবিদ, সাহিত্য পরিষদের সদস্য, নবীন সমিতির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক, রেডিও ঝিনুকের নিয়মিত গীতা পাঠক, নবগঙ্গা উন্নয়ন কমিটির সহ সভাপতি, জেলা অটো-মাহেন্দ্র মালিক সমিতির উপদেষ্টা ও সোনালি ক্লাবের উপদেষ্টা।

তাঁকে বিভিন্ন সময়ে ঝিনাইদহের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান পদক/ক্রেস্ট উপহার দিয়েছে। ঝিনাইদহ থিয়েটার তাকে যাত্রা জগতের মঞ্চ প্রদীপ বলে আখ্যায়িত করেছে। তিনি কবি ও লেখক হিসাবে ঝিনাইদহের সর্বত্র সুপরিচিত।

মুক্তিযোদ্ধায় তালিকায় নন্দ দুলালের নাম না থাকা প্রসঙ্গে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, তাঁর নাম মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় আসবে কি আসবে না সেটা ঠিক করবে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়। আমরা নাম পাঠিয়ে দিয়েছি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত