শিরোনাম

  নৌকার জয় সুনিশ্চিত : প্রধানমন্ত্রী   আজ ইউপিডিএফ’র ২০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী   এবার থাইল্যান্ডে বৈধ হলো গাঁজা   ইউপিডিএফ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সকলকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানালেন প্রসিত বিকাশ খীসা   চীনা শিশুরা আর স্কুল পালাতে পারবে না!   আবার ক্ষমতায় গেলে ভুল সংশোধন করা হবে : কাদের   প্রধানমন্ত্রী থেকে মাতৃভাষার বই পেয়েছে ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর শিশুরা   শুভ বড়দিন আজ   রোহিঙ্গাদের জন্য শীতবস্ত্র পাঠাল ভারত   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪০০ অধিক ছাড়িয়েছে   টাকার মালা উপহার পেলেন ফখরুল!   মধ্যরাত থেকে নির্বাচনী মাঠে সেনাবাহিনী   ভোটের দিন ২৪ ঘণ্টা সব যান চলাচল বন্ধ   সেনা মোতায়েনে ভোটারদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসবে: সিইসি   পানছড়িতে ইউপিডিএফের নির্বাচনী অফিসে এলোপাতাড়ি ব্রাশ ফায়ারে ২ জন নিহত!   জেএসসি ও পিইসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ   আগামী ৩০ তারিখ আমরা নৌকার বিজয় নিয়ে ঘরে ফিরবো: দীপংকর তালুকদার   ইন্দোনেশিয়ায় সুনামির আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২২২ জন   যারা মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদের ভোট দেবেন নাঃ প্রধানমন্ত্রী   ২৮ ডিসেম্বর থেকে ১ জানুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত ৪ দিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা
প্রচ্ছদ / ফিচার / মানুষের ভালো করতে মুসলমান হওয়া লাগে না, ইফতার নিতে আসা এক মহিলা

মানুষের ভালো করতে মুসলমান হওয়া লাগে না, ইফতার নিতে আসা এক মহিলা

প্রকাশিত: ২০১৮-০৫-২৭ ১০:০২:৪১

   আপডেট: ২০১৮-০৫-২৭ ১০:০৩:১৪

ঢাকা

বিগত পাঁচ বছরের ধারাবাহিকতায় এ বছরও পহেলা রমজান থেকে শতাধিক রোজাদারকে ইফতারি বিতরণ শুরু করেছে রাজধানীর সবুজবাগের ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহার কর্তৃপক্ষ।

রোজার মাস শুরু থেকে রোজাদারদের হাতে ইফতারির প্যাকেট তুলে দিচ্ছেন ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারের অধ্যক্ষ ,বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের সভাপতি সংঘনায়ক ভদন্ত শুদ্ধানন্দ মহাথেরো ও বিহার অথরিটি।

ইফতার বিতরণের আয়োজনে দেখা যায়, বিকেল ৪টা ৪৫ মিনিট ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারের মূল ফটকের বাইরে লোকজনের ভিড়। ফটকের ভেতরে অতীশ হলের সামনে ইফতারি বিতরণের আয়োজন করা হয়। বড়সড় একটা টেবিলের ওপর ইফতারির প্যাকেট সাজানো হয়। সামনে ইফতারি নিতে আসা মানুষের দীর্ঘ সারি। একজন করে আসছেন, মহাবিহারের অধ্যক্ষের হাত থেকে ইফতারির প্যাকেট নিচ্ছেন।

প্রতিদিন বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে সাড়ে ৫টার মধ্যে ইফতারি দেওয়া হবে। সবাই ইফতারির প্যাকেট নিয়ে নিজের ঘরে ফেরেন। প্যাকেটে থাকে চপ, বেগুনি, পেঁয়াজু, ছোলা ভুনা, শাহি জিলাপি ও মুড়ি।

ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহার ২০১৩ সাল থেকে দুস্থ ও অসচ্ছল রোজাদারদের মধ্যে ইফতারি বিতরণ করে আসছে। এ বছরও সে আয়োজন করছে কর্তৃপক্ষ।

বিহার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে,২০১৩ ও ২০১৪ সালে সিঙ্গাপুর প্রবাসী এক ব্যক্তির ব্যক্তিগত অনুদানে ইফতারি বিতরণ কার্যক্রম চালু হয়। এবার তিনি অনুদান না দিলেও বিহারের নিজস্ব তহবিল থেকে ইফতারি দেওয়া হচ্ছে। ১৯৬০ সালে বিহারটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এখানে ৭৭০ জন অনাথ ছেলে আছে। বিহারই তাদের পড়াশোনা ও থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করছে।

প্রায় ১৬ বছর ধরেই ইফতার বিতরণ ছাড়াও প্রতি ঈদে এই মন্দির থেকে গরিবদের চাল, আলু, সেমাই, চিনি ও নারকেল দেওয়া হয়। নারী ও পুরুষদের মাঝে আলাদা করে শাড়ি ও লুংগি-পাজামা বিতরণ করা হয়।

ইফতার নিতে আসা এক গৃহকর্মী রোজা রাইখা প্রায়ই খালি পানি আর মুড়ি দিয়া ইফতার করা লাগে আমাগো। অন্য বুয়াদের কাছে শুইনা এখানে ইফতার নিতে আসছি।“মানুষের ভালো করতে মুসলমান হওয়া লাগে না”

বিহারের কয়েক ভিক্ষু জানান, মানুষের মনে শান্তি আনাই তাদের মূল লক্ষ্য, তা সে যে ধর্মেরই হোক। প্রতিদিন এখানে তিনশ থেকে পাঁচশ জনের ইফতারের আয়োজন থাকে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত