শিরোনাম

  ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জন্য মাতৃভাষায় পুস্তক প্রকাশনার বিধান রেখে খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা   সরকারী চাকরিতে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য কোটা না হলেও সমস্যা হবে না   রুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু   দুই আদিবাসী কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি   দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি ও ভারী বর্ষণ হতে পারে   আদিবাসী মানবাধিকার সুরক্ষাকর্মীদের সম্মেলন ২০১৮ উদযাপন   ব্লগার বাচ্চু হত্যার সঙ্গে ‘জড়িত’ ২ জঙ্গি নিহত   জুমের বাম্পার ফলনে রাঙ্গামাটির চাষিদের মুখে হাসি   সরকারি চাকরিতে আদিবাসী কোটা বহাল দাবি জানাল আদিবাসীরা   আয়ারল্যান্ড প্রবাসী বাংলাদেশের এক মন্ত্রী দ্বারা হেনস্ত হওয়াতে হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নিন্দা   শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পেয়েছে   মিয়ানমারে রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত   শহীদ আলফ্রেড সরেন হত্যার ১৮ বছর: হত্যাকারীদের দ্রুত বিচারের দাবি জাতীয় আদিবাসী পরিষদের   ভারতের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে বাংলাদেশের মেয়েরা   সরকারী চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা ছাড়া সব কোটা বাতিল হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী   জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান মারা গেছেন   ঈদের ছুটি কাটানো হলোনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার নিরীহ ধীরাজ চাকমার   খাগড়াছড়িতে পৃথক ঘটনার জন্য জেএসএস(সংস্কারবাদী) ও নব্য মুখোশ বাহিনীকে দায়ী করেছে : ইউপিডিএফ   নানিয়ারচর থেকে খাগড়াছড়ি   খাগড়াছড়িতে ৬ জনকে গুলি করে হত্যা !
প্রচ্ছদ / বিনোদন / সড়ক দূর্ঘটনায় নিজের স্ত্রীকে হারিয়ে আজও রাস্তায় আন্দোলন করছেন নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন

সড়ক দূর্ঘটনায় নিজের স্ত্রীকে হারিয়ে আজও রাস্তায় আন্দোলন করছেন নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন

প্রকাশিত: ২০১৮-০৮-০৭ ১৫:৩১:৪৫

সালমান আহসান >>

সিনেমার পর্দায় দুর্দান্ত অভিনয়ে কোটি মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। সবার প্রিয় এই মানুষটি গত ২৫ বছর ধরে একটি কষ্ট বুকে চেপে জীবনযাপন করছেন। স্ত্রীকে হারানোর কষ্ট। ১৯৯৩ সালের ২২ অক্টোবর এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনকে হারিয়েছেন।

জীবনের সবচেয়ে প্রিয় মানুষটিকে হারানোর ব্যথা আজও কাঁদায় গুণী এই চলচ্চিত্র অভিনেতাকে।

স্ত্রীকে হারানোর পর সিনেমার পর্দায় আর তেমন দেখা যায়নি এই অভিনেতাকে। চলচ্চিত্র অভিনয়ে অনিয়মিত হলেও ২৫ বছর ধরে মানুষকে সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ে সচেতন করার লড়াই করছেন। ইলিয়াস কাঞ্চনের স্বপ্ন, আর কোনো মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাবে না।

এই স্বপ্ন থেকেই প্রতিষ্ঠা করেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)’ নামের একটি সংগঠন। প্রতি বছর স্ত্রীর প্রয়াণ দিনটিকে ‘নিরাপদ সড়ক দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে ইলিয়াস কাঞ্চন ও তার সংগঠন ‘নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)’।

এবারও পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে ৯ দফা দাবি আদায়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) আন্দোলনের চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের বাসচাপায় কলেজপড়ুয়া দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। পরের দিন থেকে রাজধানীর সড়ক অবরোধ করে বেপোরোয়া বাস চালকের ফাঁসি, রাস্তায় ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল এবং লাইসেন্স ছাড়া চালকদের গাড়ি চালনা বন্ধসহ ৯ দফা দাবি আদায়ে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা।

আমি তোমাদের জীবন নিয়ে শঙ্কিত। মানুষ কতটা অমানবিক হতে পারে, তা জানা ছিলোনা। যে সন্তানরা আজ নিরাপদ সড়কের দাবি নিয়ে রাস্তায় নেমেছে সেই কোমলমতি শিশুদের নিয়ে রাজনীতি শুরু হয়ে গেছে! ভাবতেও ঘৃণা হয়। চারদিকে নানা গুজব ছড়ানো হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মিশে যাচ্ছে সুযোগসন্ধানীরা। আমি তোমাদের জীবন নিয়ে শঙ্কিত, আমি চিন্তিত চিন্তিত…….।’

গতকাল সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য প্রদানকালে কথাগুলো বলতে বলতে অঝরে ডুকরে কেঁদে উঠলেন নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান চিত্র নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। কাঁদলেন কাঁদালেন উপস্থিত সবাইকে। তাঁর কান্নায় আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিক ও নিসচার অন্যান্ন নেতৃবৃন্দও।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, অনুমোদিত আইনের নামই আপত্তিকর। তারা 'সড়ক পরিবহন ও সড়ক নিরাপত্তা' আইন দাবি করেছিলেন। কিন্তু শুধু 'সড়ক পরিবহন আইন' নামে এর অনুমোদন দেওয়া হলো।

তিনি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনায় সর্বনিম্ন দশ বছরের কারাদণ্ড দাবি করা হয়েছিল। উচ্চ আদালতের একটি নির্দেশনাও ছিল কমপক্ষে সাত বছর বা তার বেশি সাজার। তাদের দাবি ও আদালতের নির্দেশনা এড়িয়ে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

অনুমোদিত আইনে দুর্ঘটনার জন্য 'দায়ী ব্যক্তি'র বদলে চালক শব্দ উল্লেখ করা হয়েছে জানিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, দুর্ঘটনার জন্য মালিক, শ্রমিক, পথচারী যে কেউ দায়ী হতে পারে।

চালক ও হেলপারদের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে তিনি বলেন, অনুমোদিত আইনে চালকদের যোগ্যতা অষ্টম শ্রেণি ও হেলপারদের পঞ্চম শ্রেণি পাস করার কথা বলা হয়েছে। যারা হেলপার হিসেবে কাজ করে তাদের লক্ষ্য থাকে চালক হওয়া। তাহলে তারা পঞ্চম শ্রেণি পাস করে কীভাবে চালক হবে।

আইনে ক্ষতিপূরণের বিষয়টি উহ্য রাখা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, একটি কমিটি করা হবে যেখানে চালক, মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধি থাকবে। কিন্তু এই কমিটিতে নিরাপদ সড়ক নিয়ে যারা কাজ করেন তাদেরও রাখতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে এক পর্যায়ে আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, এখন আমি শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলন নিয়ে চিন্তিত। শুরু হয়েছে নোংরা রাজনীতি। চারদিকে নানা গুজব ছড়ানো হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মিশে আছে সুযোগসন্ধানীরাও। ইতিমধ্যে যা শুরু হয়েছে, যেই করুক না কেন, তা অত্যন্ত জঘন্য ও ঘৃণিত। এটা মেনে নিতে পারছি না।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত