শিরোনাম

  গত ৫ বছরে জেএসএস এমপি উন্নয়ন করতে পারেনি, যা করেছে আওয়ামীলীগ করেছে : দিপংকর তালুকদার   এখন থেকে সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার আগে মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক   'বান্দরবানে বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই'   'নির্বাচনী প্রচারণায় রঙিন পোস্টার বা ব্যানার ব্যবহার করা যাবে না'   ৫৮টি নিউজ পোর্টাল খুলে দিয়েছে বিটিআরসি   বুধবার থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী   বিএনপি ক্ষমতায় এলে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করার চেষ্ঠা করবো: মনি স্বপন দেওয়ান   তিন পাহাড়ে নৌকা নিয়ে মাঠে দৌড়াবেন যারা   আগামীকাল খালেদা জিয়ার অগ্নিপরীক্ষা   হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, সফল হিরো আলমের চ্যালেঞ্জ   খাগড়াছড়িতে বনের রাজা পেয়েছেন ইউপিডিএফের প্রার্থী নতুন কুমার চাকমা   বিশ্বের প্রথম উঁচু ভাস্কর্য 'চীনের স্প্রিং টেম্পল বুদ্ধ'   আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস || আদিবাসীদের মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসার অাহ্বান   বনের রাজা সিংহকে নিয়ে রাঙ্গামাটিতে দৌড়াবেন ঊষাতন তালুকদার   আজ বিশ্ব মানবাধিকার দিবস   নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জন্য যেসব মার্কা দেওয়া হচ্ছে...   নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণায় সকল প্রার্থীদের যা যা মেনে চলতে হবে   নির্বাচনে গাড়ি প্রতীক পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমরান এইচ সরকার   দেশে ৫৮টি নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বিটিআরসি   পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য শেখ হাসিনাকে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দেওয়া উচিত
প্রচ্ছদ / আর্টস / আজ আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী ফুল বিজু

আজ আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী ফুল বিজু

প্রকাশিত: ২০১৮-০৪-১২ ১১:৩৬:২৪

   আপডেট: ২০১৮-০৪-১৩ ০৯:০৩:৪৬

১২ এপ্রিল ২০১৮ , কাপ্তাই হ্রদের পানিতে ফুল ভাসিয়েছে আদিবাসীরা।

ডেইলি সিএইচটি রিপোর্ট , রাঙ্গামাটি

আজ ১২ এপ্রিল ফুল বিজু। প্রতি বছরের ন্যায় এই বছর ও যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী প্রধান উৎসব বৈসু, সাংগ্রাই, বিজু ,বিষু ,বিহু ,চাংক্রান ইত্যাদি ।

এদিন কাপ্তাই হ্রদের পানিতে ফুল ভাসিয়ে বিজুর আমেজ উপভোগ করে পাহাড়িরা। সকালে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান জেলাসহ বিভিন্ন স্থানে পাহাড় থেকে বনের ফুল সংগ্রহ করে আদিবাসী তরুন-তরুনী থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়স্কের মানুষ ফুল বিজু পালন করেছেন।

'বিজুফুল'কে চাকমারা 'ভাতজোড়া' ফুল বলে অভিহিত করে থাকে। মারমারা বলে ‘চগাপেইং আর ত্রিপুরারা বলে ‘কুমুইবোবা’। তবে 'বিজুফুল' অন্যান্য জাতিগোষ্ঠীর সংস্কৃতির নাম অনুসারে এখনো বিদ্যমান রয়েছে ।

মূলত ১২ এপ্রিল পালন করা হয় ফুলবিজু। এই দিন ভোরের আলো ফুটার আগেই ছেলেমেয়েরা বেরিয়ে পড়ে ফুল সংগ্রহের জন্য। সংগ্রহিত ফুলের একভাগ দিয়ে বুদ্ধকে পূজা করা হয় আর অন্যভাগ পানিতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। বাকি ফুলগুলো দিয়ে ঘরবাড়ি সাজানো হয়। বাংলা বছরের শেষ দুই দিন ও নববর্ষের দিন এই উৎসব পালন করা হয়।

বন থেকে ফুল সংগ্রহ করে পুরাতন বছরে গ্লানি -দুঃখ ভুলে নতুন দিনের মঙ্গল কামনায় গঙ্গা দেবীর উদ্দেশ্যে বিজু ফুল নদীতে ভাসানো হয়। এছাড়াও মাধবীলতা, অলকানন্দা, নিম পাতা, রঙ্গন, জবাফুলসহ বাহারি ফুল কলাপাতায় করে নদীর জলে ভাসানো হয়।

বাড়িতে নানু,দাদুরা বলে থাকে বিজুর সময় বন থেকে পাহাড়ি ফুল সংগ্রহ করে নদীতে ভাসালে চিত্ত পরিশুদ্ধ ও মঙ্গল হয়। তবে পাহাড়ি ফুল ব্যতিত অন্যান্য ফুল ভাসালে তেমন ফুলবিজুর পরিপূর্নতা পায়না।

চৈত্র মাসের শেষ দিন অর্থাত্‍ ১৩ এপ্রিল পালন করা হয় মুলবিজু। ছেলেমেয়েরা তাদের বৃদ্ধ দাদা-দাদী এবংনানা-নানীকে গোসল করায় এবং আশীর্বাদ নেয়। এই দিনে ঘরে ঘরে বিরানী সেমাই পাজন (বিভিন্ন রকমের সবজির মিশ্রণে তৈরি এক ধরনের তরকারী) সহ অনেক ধরনের সুস্বাদু খাবার রান্না করা হয়। বন্ধুবান্ধব আত্নীয়স্বজন বেড়াতে আসে ঘরে ঘরে এবং এসব খাবার দিয়ে তাদেরকে আপ্যায়ন করা হয়। সারাদিন রাত ধরে চলে ঘুরাঘুরি। বাংলা নববর্ষের ১ম দিন অর্থাত্‍ ১৪ এপ্রিল পালন করা হয় গজ্যা পজ্যা দিন (গড়িয়ে পড়ার দিন)। এই দিনেও বিজুর আমেজ থাকে।

ফুলবিজুর দিনে আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী সাজ-পোশাক (থামি, পিনন, কবই, খাদি, খবং, ধুতি, ফতুয়া পরে) ফুল বিজুতে অংশ নেয় চাকমা,ত্রিপুরা,মারমা তরুণ-তরুনীরা।  

আপনার মন্তব্য

আলোচিত