শিরোনাম

  গত ৫ বছরে জেএসএস এমপি উন্নয়ন করতে পারেনি, যা করেছে আওয়ামীলীগ করেছে : দিপংকর তালুকদার   এখন থেকে সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার আগে মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক   'বান্দরবানে বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই'   'নির্বাচনী প্রচারণায় রঙিন পোস্টার বা ব্যানার ব্যবহার করা যাবে না'   ৫৮টি নিউজ পোর্টাল খুলে দিয়েছে বিটিআরসি   বুধবার থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী   বিএনপি ক্ষমতায় এলে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করার চেষ্ঠা করবো: মনি স্বপন দেওয়ান   তিন পাহাড়ে নৌকা নিয়ে মাঠে দৌড়াবেন যারা   আগামীকাল খালেদা জিয়ার অগ্নিপরীক্ষা   হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, সফল হিরো আলমের চ্যালেঞ্জ   খাগড়াছড়িতে বনের রাজা পেয়েছেন ইউপিডিএফের প্রার্থী নতুন কুমার চাকমা   বিশ্বের প্রথম উঁচু ভাস্কর্য 'চীনের স্প্রিং টেম্পল বুদ্ধ'   আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস || আদিবাসীদের মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসার অাহ্বান   বনের রাজা সিংহকে নিয়ে রাঙ্গামাটিতে দৌড়াবেন ঊষাতন তালুকদার   আজ বিশ্ব মানবাধিকার দিবস   নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জন্য যেসব মার্কা দেওয়া হচ্ছে...   নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণায় সকল প্রার্থীদের যা যা মেনে চলতে হবে   নির্বাচনে গাড়ি প্রতীক পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমরান এইচ সরকার   দেশে ৫৮টি নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বিটিআরসি   পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য শেখ হাসিনাকে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দেওয়া উচিত
প্রচ্ছদ / আর্টস / ২১ ডিসেম্বর থেকে বান্দরবানে তিন দিনব্যাপী ১৪০ তম ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ

২১ ডিসেম্বর থেকে বান্দরবানে তিন দিনব্যাপী ১৪০ তম ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ

প্রকাশিত: ২০১৭-১১-২২ ১৯:০০:০১

নয়ন রায়, বান্দরবান থেকে

বান্দরবানে আগামী ২১ ডিসেম্বর থেকে তিন দিনব্যাপী ১৪০তম ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ (পইংজ্রা) মেলা রাজার মাঠে শুরু হতে যাচ্ছে। ২১ ডিসেম্বর শুরু হয়ে রাজপুণ্যাহ চলবে ২৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের । বুধবার সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই তথ্য নিশ্চিত করা হয়।আরো উপস্থিত থাকবেন প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং। তাছাড়া দেশীয় অধিবাসীদের পাশাপাশি বিদেশী অতিথি ও মেলায় অংশগ্রহণ করার কথা রয়েছে।

রাজ প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, তিন দিনব্যাপী রাজপূণ্যাহ মেলা জাকজমকপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। প্রতিবারের মতো এবারও নানা আনন্দ বিনোদনের আয়োজন করা হবে। তার মধ্যে রয়েছে সার্কাস, যাত্রাপালা, পুতুল নাচ, মৃত্যুকূপসহ নানান আয়োজন। পুলিশের প্রায় ৪-৫ শ’ সদস্য মেলায় সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন। আর মেলার বিভিন্ন পয়েন্টে সিসি ক্যামেরা নিরাপত্তা পর্যবেক্ষনের জন্য স্থাপন করা হবে।

প্রতি বছর প্রায় ১৫ হাজার জুমিয়া আদিবাসী পরিবারের কাছ থেকে নব্বই হাজার টাকা খাজনা আদায় করা হয়। এর মধ্যে ৪২ ভাগ রাজা, ২১ ভাগ হেডম্যান এবং ২৭ রাজস্ব ভাগ সরকার পেয়ে থাকে।

আনন্দঘন পরিবেশে শান্তিপূর্ণভাবে ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ মেলা আয়োজনে সবার সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন রাজ প্রশাসন।

এদিকে আসন্ন ঐতিহ্যবাহী মেলাকে ঘিরে বান্দরবানের আদিবাসী-বাঙালিদের মাঝে খুশির আমেজ ছড়িয়ে পড়েছে।

উল্লেখ্য, ১৭২৭ সাল থেকে বোমাং রাজ প্রথা শুরু হলেও ১৮৭৫ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে বোমাং রাজাগণ ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ মেলার আয়োজন করে আসছেন। গতবছর ১৩৯ তম রাজপূণ্যাহ ছিল এবার ১৪০তম ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ পালন করা হবে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত